জোড়া গোলে ইউরোপের প্রথম এবং ইতিহাসের দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে শততম গোলের মাইলফলক স্পর্শ করার আগমুহূর্তেও কটু কথা শুনতে হয়েছে তাকে। আগের সপ্তাহে তাকে ছাড়া ক্রোয়েশিয়াকে ৪-১-এ হারিয়েছিল পর্তুগাল। সেই প্রসঙ্গ তুলে কেউ কেউ তাই বলে ফেলেছিলেন রোনালদোকে ছাড়াই পর্তুগাল ভালো খেলতে পারে।

স্টকহোমে ইতিহাস গড়া ম্যাচের পর তাই এ নিয়েই জবাব দিতে হলো রোনালদোকে। বললেন, কারও কাছে তার প্রমাণের কিছু নেই। প্রমাণ যা দেওয়ার তিনি মাঠেই দেন। সুইডেনের বিপক্ষে দুই গোল করে ১০০ গোলের গৌরবময় রেকর্ডের অধিকারী এখন রোনালদো।

আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বকারের সর্বোচ্চ গোলদাতা হতে লাগবে আরও ৯ গোল। সিআর সেভেনের বিশ্বাস, সেটি হয়ে যাবে সামনেই, 'একশ' গোলের মাইলফলকে পৌঁছেছি, এবার আমি রেকর্ডের দিকে ছুটব। ধাপে ধাপে হয়ে যাবে। আমি অবশ্য রেকর্ড নিয়ে মগ্ন হয়ে থাকছি না। কারণ, রেকর্ড তার স্বাভাবিক গতিতেই আসবে বলে আমার বিশ্বাস।'

করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি থাকায় ফুটবল চলছে এখন ফাঁকা গ্যালারিতে। স্টকহোমের ফ্রেন্ডস স্টেডিয়ামে বিশাল এক কীর্তি গড়লেন, কিন্তু সামনে বসে কোনো দর্শক দেখতে পারলেন না- এ নিয়ে অতৃপ্তি আছে রোনালদোর, 'দর্শক ছাড়া খেলা হচ্ছে ফুল ছাড়া বাগান দেখার মতো।'