বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপের প্রথম ম্যাচে জেমকন খুলনার কাছে শেষ ওভারে নাটকীয়ভাবে হারে তামিম ইকবালের ফরচুন বরিশাল। তবে দ্বিতীয় ম্যাচেই ঘুরে দাঁড়িয়েছিল তারা। মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীর বিপক্ষে দারুণ এক ইনিংস খেলেছিলেন অধিনায়ক তামিম। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে সেট হয়েও দলকে জেতাতে পারেননি তিনি।

৩২ বলে ৩২ রানের এক ইনিংস খেলে ফিরে যান সাজঘরে। তার দল বরিশাল তাই ১৫২ রান তাড়ায় মাত্র ১০ রানে হেরেছে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের কাছে। তামিম তার ইনিংসটা বড় করতে পারলে ম্যাচের ফল ভিন্ন হতে পারতো। ম্যাচ শেষে সাংবাদিকদের সেকথাই বলেছেন তামিম। জানিয়েছেন, সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের ক্রিকেটে ২০-৩০ রান করে আউট হওয়া পাপের মতো।

বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক বলেন, 'শুরুতে ব্যাটিং করার কারণে আমরা যথেষ্ট বল খেলতে পারি, উইকেটের আচরণ যাচাই করতে পারি। আমি আর আফিফ উইকেটে অনেকক্ষণ থেকেছি, আমাদের অন্তত একজনের উচিত ছিল ম্যাচটা শেষ করে আসা।'

তামিমের মতে, আফিফও যথেষ্ঠ অভিজ্ঞ। তাদের একজনকে তাই দায়িত্ব নেওয়া উচিত ছিল। উইকেট ব্যাটিং সহায়ক নয়। তার দল আবার ১৫ রানের মতো বেশি দিয়ে ফেলেছেন বলেও মনে করেন তামিম।

তিনি বলেন, 'গুরুত্বপূর্ণ সময়ে একটি ক্যাচ ছেড়েছি। এক ওভারে তিনটি ছক্কা হজম করতে হয়েছে। এটা খেলারই অংশ। ব্যাট হাতে আমাদের শুরুটাও ভালো ছিল। কিন্তু একপর্যায়ে উইকেট হারাতে থাকি। হৃদয় ও ইরফানের উইকেটটা মূল্যবান ছিল। ম্যাচটা আমাদের জন্য শিক্ষনীয়। কারণ জয়টা অসম্ভব ছিল না। গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ভালো ব্যাট করলে ম্যাচ আমাদের নিয়ন্ত্রণে থাকতো।'