পাকিস্তানের বাঁ-হাতি পেসার মোহাম্মদ আমির সব ধরণের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা করেছেন। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। পিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াসিম খান বলেছেন, আমির বোর্ডকে জানিয়েছে, তার আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলে যাওয়ার আগ্রহ নেই। তাকে তাই আগামীতে পাকিস্তান দলে ডাকা ঠিক হবে না। 

তবে নিষেধাজ্ঞা থেকে ফিরে দুর্দান্ত ক্রিকেট উপহার দেওয়া আমির এক ভিডিও বার্তায় বলেছেন, 'আপাতত আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে বিরতি নিচ্ছি। কারণ পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের বর্তমান ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে খেলে যাওয়া আমার পক্ষে সম্ভব নয়। আমাকে মারাত্মক মানসিক নির্যতন করা হচ্ছে। এই অবস্থায় আমি আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলে যেতে চাই না।  

এই নির্যাতন আমি আর নিতে পারছি না। ২০১০-২০১৫ পর্যন্ত অনেক কিছু দেখেছি। সব সময় আমাকে শুনে যেতে হয় যে, পিসিবি আমার পেছনে অনেক অর্থ ব্যয় করেছে। এসব শুনে আমি ক্লান্ত। আমি শহীদ আফ্রিদির কাছে কৃতজ্ঞ। তিনি নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্তির পর আমাকে আবার ক্রিকেটে ফেরার সুযোগ করে দিয়েছিলেন।'

টেস্ট ক্রিকেট থেকে বিদেশি লিগে খেলার জন্য অবসর নিয়েছেন এমন অভিযোগ শুনতে হয় জানিয়ে আমির বলেন, 'সবসময় বলা হয় যে, বিদেশি লিগে খেলার জন্য আমি টেস্ট ছেড়েছি। আমি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) ভালো পারফরম্যান্স দেখিয়ে আবার ক্রিকেটে ফিরে আসি। যদি লিগে আগ্রহী হতাম তাহলে তখনই বলে দিতাম পাকিস্তানের হয়ে খেলতে চাই না। প্রতি মাসেই আমাকে শুনতে হয় যে, আমির আমাদের ধসিয়ে দিয়েছেন। আগামী দুই দিনের মধ্যে আমি পাকিস্তান পৌঁছে আনুষ্ঠানিকভাবে অবসরের বিষয়টি নিয়ে একটি বিবৃতি দেব।'

আমির পাকিস্তানের হয়ে ৩০ টেস্ট, ৬১ ওয়ানডে এবং ৫০টি টি-২০ ম্যাচ খেলেছেন। সব মিলিয়ে ২৫৯ আন্তর্জাতিক উইকেট নিয়েছেন বাঁ-হাতি এই পেসার। তার ক্যারিয়ার দুই ধাপে বিভক্ত। ম্যাচ ফিক্সিংয়ের আগে ও পরে। মোহাম্মদ আমিরের ২০০৯ সালে পাকিস্তান জাতীয় দলে অভিষেক হয় টি-২০ বিশ্বকাপ দিয়ে। ওই বিশ্বকাপেই দলকে ফাইনালে তুলতে দারুণ পারফরম্যান্স দেখান তিনি।

এরপর ওয়ানডে-টেস্ট ক্রিকেটে যাত্রা শুরু হয় তার। সেটাই হয় কাল। ২০১০ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে স্পট ফিক্সিংয়ের সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ মেলায় পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা পান তিনি। ২০১১ সালে ৫ ফেব্রুয়ারি আইসিসি আমির, আসিফ ও সালমান বাটকে বিভিন্ন মেয়াদে নিষিদ্ধ করেন। ২০১৫ সালে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ পার করে আবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরে আসেন আমির। দলকে জেতান ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফি।