করোনাভাইরাসের কারণে গত বছর স্থগিত হয়ে যায় বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ বাছাইপর্ব। কাতারের প্রস্তাবে ৪ ডিসেম্বর দোহায় গিয়ে বাছাইয়ের শেষ অ্যাওয়ে ম্যাচটি খেলে আসেন জামাল ভূঁইয়ারা। নতুন বছরে পুরো বাংলাদেশের দৃষ্টি ছিল ঘরের মাঠে তিনটি ম্যাচ নিয়ে। বাফুফের ক্যালেন্ডারে দেখা যায়, ২৫ মার্চ আফগানিস্তান, ৭ জুন ভারত ও ১৫ জুন ওমানের বিপক্ষে সিলেটে বাংলাদেশের ম্যাচ। কিন্তু হোম ম্যাচের সুবিধা হারানোর শঙ্কায় বাংলাদেশ! ওমান ও কাতার এই অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাইয়ের বাকি ম্যাচগুলো নিজেদের ভেন্যুতে করার প্রস্তাব দিয়েছে বলে জানায় বাফুফে।

বুধবার ন্যাশনাল টিমস কমিটির সভা শেষে বাফুফে সহসভাপতি ও কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ জানান, 'বিশ্বকাপ বাছাইয়ে খেলার জন্য আমরা অন্য একটি ফেডারেশনের কাছ থেকে প্রস্তাব পেয়েছি যে সব ম্যাচ তাদের মাঠে গিয়ে খেলতে। অনেকেই নাকি সম্মতি জানিয়েছে।

কিন্তু আমরা দেখেছি, ফিফার ওয়েবসাইটে অন্যরা তাদের হোম ভেন্যু ঘোষণা করেনি। একমাত্র বাংলাদেশই ঘোষণা করেছে তাদের হোম ভেন্যু সিলেট। বর্তমান ফিকশ্চার অনুযায়ী, বাংলাদেশের ম্যাচগুলো আমরা বাংলাদেশে খেলতে আগ্রহী। যে তারিখ দেওয়া আছে, সে অনুযায়ী। যদি ফিফা ও এএফসি অন্য কোনো সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে, সেটা ভিন্ন বিষয়। পরবর্তী সময়ে আমরা এটা নিয়ে আলোচনা করব।'

এই প্রস্তাবটি মূলত দিয়েছে ওমান। কাতারও জানিয়েছে যে যদি ওমান কোনো কারণে খেলা আয়োজন না করতে পারে, তাহলে তারা করবে। প্রস্তাব অনুযায়ী ২৪, ২৭ ও ৩০ মার্চ বাংলাদেশের খেলার সূচি করা হয়েছে।

হঠাৎ করে দুটি দেশের এমন প্রস্তাবের মূল কারণ কভিড-১৯ পরিস্থিতি বলে জানিয়েছেন কাজী নাবিল, 'করোনাভাইরাসের কারণে অন্য দেশগুলো মনে করছে, বিভিন্ন দেশে গিয়ে খেলা, কোয়ারেন্টাইন সময় ইত্যাদি বিষয় সামনে চলে আসছে। আর এগুলো মেনে খেলা কঠিন। তাই এক ভেন্যুতে হলে সবকিছু মেনটেইন করে দ্রুত ম্যাচগুলো খেলা হয়ে যাবে। আমরা জানতে পেরেছি যে, হয়তো চীন, জাপান, কোরিয়ার ম্যাচগুলো হয়তো এরকম হতে পারে।'

ছুটি কাটিয়ে আজ ঢাকায় ফিরছেন বাংলাদেশ কোচ জেমি ডে। বাংলাদেশ সরকারের নিয়ম অনুযায়ী, ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে ব্রিটিশ এ কোচকে।