প্রায় ১৭ বছরের ক্লাব ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো লালকার্ড দেখে মাঠ ছাড়লেন বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসি। স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনালের অতিরিক্ত সময়েরও একেবারে শেষ মুহূর্তে অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের বিপক্ষে পিছিয়ে থাকা বার্সেলোনার অধিনায়ক লিওনেল মেসিকে প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড় পথ আটকে দেয়ার চেষ্টা করলে মেসি এক ধাক্কায় তাকে ফেলে দেন।

প্রথমে রেফারির চোখ এড়িয়ে যায় ঘটনাটি, তিনি ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (ভিএআর) দিয়ে পুনরায় পর্যবেক্ষণ করে সঙ্গে সঙ্গে মেসিকে সরাসরি লাল কার্ড দেখান। খবর বিবিসির

এই লাল কার্ডের সিদ্ধান্তেরর পর মেসি বা তার সতীর্থদের তেমন প্রতিবাদ করতে দেখা যায়নি। টিভিতে তাদের প্রতিক্রিয়া দেখে মনে হয়েছে তারা রেফারির এই সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছেন। লিওনেল মেসি এ ঘটনার কারণে ঘরোয়া ফুটবলে চার ম্যাচ পর্যন্ত নিষিদ্ধ হতে পারেন।

স্পেনের এই কাপ ফাইনালের শুরু থেকেই উত্তেজনা ছিল। বার্সেলোনার ফরাসী তারকা আন্তোনি গ্রিজমান দুটি গোল করে বার্সেলোনাকে এগিয়ে রাখেন।

কয়েক সেকেন্ড পরেই বার্সেলোনা ক্লাবটির ইতিহাসের ১৪তম বারের মতো স্প্যানিশ সুপার কাপ জিতে যেত। হতে পারত এটা বার্সার নতুন কোচ রোনাল্ড কোম্যানের প্রথম শিরোপা। আবার হতে পারত এটা লিওনেল মেসির বার্সার হয়ে সম্ভাব্য বিদায়ী মৌসুমের শিরোপা।

কিন্তু বিলবাওয়ের স্প্যানিশ ফুটবলার আজিয়ের ভিয়ালিব্রে ম্যাচের অন্তিম মুহূর্তে গোল করে খেলা টিকিয়ে রাখেন।

২-২ সমতায় অতিরিক্ত সময়ের খেলা শুরু হলে ৯৩ মিনিটেই ইনাকি উইলিয়ামসের গোলে এগিয়ে যায় অ্যাথলেটিক বিলবাও।

তবে লিওনেল মেসির বার্সেলোনা ক্যারিয়ারে এটা প্রথম লাল কার্ড হলেও আর্জেন্টিনার হয়ে এর আগে দুইবার লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন তিনি।

মজার তথ্য হচ্ছে লিওনেল মেসি আর্জেন্টিনার হয়ে প্রথমবার মাঠে নেমে এক মিনিটের মধ্যে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন। ২০০৫ সালে হাঙ্গেরির বিপক্ষে একটি ম্যাচে এই ঘটনা ঘটে।

২০১৯ সালে কোপা আমেরিকায় চিলির বিপক্ষে একটি ম্যাচে লিওনেল মেসি ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় লাল কার্ড দেখেন।

বিষয় : ফুটবল লিওনেল মেসি খেলা

মন্তব্য করুন