বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গো 'মিশন ২০২৩' শুরু করে দিয়েছেন। ওই পরিকল্পনায় ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে টপ অর্ডারে দুর্দান্ত খেলা সাকিব আল হাসানের ব্যাটিং অর্ডার নিচে নেমে যাচ্ছে। কোচের মতে, উপমহাদেশের জন্য মিডল অর্ডারে অভিজ্ঞতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়া নিষেধাজ্ঞা থেকে ফেরা সাকিবকে চাপহীনভাবে ফর্মে ফেরারও সুযোগ দিতে চান কোচ।

সোমবার ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ডমিঙ্গো তাই বলেন, 'সাকিবকে ফিরে পাওয়া দলের জন্য দারুণ খবর। গত বিশ্বকাপে তিনে সে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেছে। কিন্তু এই মুহূর্তে তাকে আমি ওই জায়গায় দেখছি না। বরং ২০২৩ বিশ্বকাপ মাথায় রেখে সাকিব, মুশফিক এবং মাহমুদুল্লাহকে আমি চার, পাঁচ ও ছয়ে ব্যাটিং করানোর পরিকল্পনা করছি। এতে মিডল অর্ডার পরিপক্ক হবে। উপমহাদেশে যেটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।'

সাকিবকে চার কিংবা পাঁচে নামিয়ে দিয়ে তরুণ বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান নাজমুল হোসাইন শান্তকে টপ অর্ডারে জায়গা করে দিতে চান কোচ। এখন জাতীয় দলের জার্সিতে তেমন কিছু করতে না পারা রাজশাহীর এই ব্যাটসম্যান এরই মধ্যে ঘরোয়া ক্রিকেটে ওই জায়গায় নিয়মিত পারফরম্যান্স করছেন।

তাকে তিনে খেলানোর যুক্তি দিয়ে কোচ বলেন, 'শান্ত প্রতিভাবান একজন খেলোয়াড়। এই মুহূর্তে সে ভালো ফর্মে আছে। আর ব্যাটসম্যান গড়ে তোলার জন্য এই অঞ্চলে টপ অর্ডারই ভালো জায়গা। আমাদের তাই তার মতো ব্যাটসম্যান গড়ে তুলতে হবে। আমি ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে জানে। আজ রাতেই তাদেরকে একাদশ এবং ব্যাটিং-বোলিং অর্ডার বুঝিয়ে দেওয়া হবে।'

রাসেল ডমিঙ্গো তার অনলাইন এই সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এই সিরিজ দিয়েই তার বিশ্বকাপ মিশন শুরু হচ্ছে। এই সিরিজে তিনি পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাবেন। এমনকি সামনের আরও কয়েকটি সিরিজে চলতে তার এমন যাচাই-বাছাই। তবে বিশ্বকাপের অন্তত আট-নয় মাস আগে তিনি ব্যাটিং অর্ডারে কে কোথায় খেলবেন সেটা মোটামুটি নিশ্চিত করে ফেলবেন বলে জানিয়েছেন। এই দুই বছর তিনি তাই ব্যাটিং অর্ডারে যেমন পরিবর্তনের সুযোগ রাখছেন তেমনি চালিয়ে যাবেন বোলারদের নিয়ে পরীক্ষা।