ঢাকা শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪

বলে লালা মাখালেন ফিলিপস, অভিযোগ জানাল বাংলাদেশ

বলে লালা মাখালেন ফিলিপস, অভিযোগ জানাল বাংলাদেশ

গ্লেন ফিলিপস

ক্রীড়া প্রতিবেদক

প্রকাশ: ৩০ নভেম্বর ২০২৩ | ২৩:০২

বৃহস্পতিবার ম্যাচের তৃতীয় দিনের দ্বিতীয় সেশনে ঘটে এই ঘটনা। বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংসের ৩৪তম ওভারের খেলা চলছিল তখন। দ্বিতীয় ডেলিভারিটি করার আগে দুবার বলে লালা ব্যবহার করেন অফ স্পিনার ফিলিপস। টেলিভিশনের পর্দাতেও ভেসে ওঠে সেই দৃশ্য। দুই অন-ফিল্ড আম্পায়ার আহসান রাজা ও পল রাইফেল ফিলিপসের নজরে আসেনি তা।

দিনশেষে দলের হয়ে আজসংবাদ সম্মেলনে এসেছিলেন মুমিনুল। সেখানে তার কাছে গ্লেন ফিলিপসের বলে লালা লাগানো ইস্যু নিয়ে জানতে চাওয়া হয়। মুমিনুল প্রথমে বলেন, ‘আমি দেখিনি।’ এমন সময় পাশ থেকে ম্যানেজার নাফিস ইকবাল নিশ্চিত করেন যে— তারা বিষয়টি দেখেছেন। এমনকি চতুর্থ আম্পায়ার মাসুদুর রহমান মুকুলের কাছে অভিযোগও জানানোর কথা বলেন তিনি। পরক্ষণেই মুমিনুল উত্তর দেন, ‘এটা বড় কোনো ইস্যু না।’

গত বছর হালনাগাদকৃত ক্রিকেটীয় আইন অনুসারে, বলে লালা ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। ২০২০ সালে করোনাভাইরাস বিশ্বজুড়ে হানা দেওয়ার পর সুরক্ষার স্বার্থে এই আইন করেছিল আইসিসি। এই ধরণের ঘটনায় অন ফিল্ড আম্পায়াররা চাইলে পাঁচ রান পেনাল্টি করতে পারেন।

সাবেক টেস্ট অধিনায়ককে যখন মনে করিয়ে দেয়া হল, আম্পায়ার চাইলে ৫ রান পেনাল্টি দিতে পারেন। তখন সুর পাল্টে মুমিনুল বলেন, ‘৫ রান পেনাল্টি! তাহলে বড় ইস্যু।’

আইসিসির বরাত দিয়ে ক্রিকেট বিষয়ক ওয়েবসাইট ইএসপিএন ক্রিকইনফো লিখেছে, ‘মাঠের ভেতরের ঘটনাগুলো সামলানো ম্যাচ অফিশিয়ালদের ওপর নির্ভর করে এবং আমরা এসব ব্যাপারে বিবৃতি দিই না।’

ক্রিকেটের আইনের ৪১.৩ ধারা হালনাগাদ করে বলা হয়েছে, ‘কোভিড-১৯ মহামারীর পর যখন ক্রিকেট আবার শুরু হয়েছিল, তখন এই খেলার শর্তগুলোর মধ্যে লিখিতভাবে উল্লেখ করা হয়েছিল যে, বলে লালা ব্যবহারের অনুমতি আর নেই। এমসিসির (ক্রিকেটের আইনপ্রণেতা সংস্থা) গবেষণায় দেখা গেছে যে, বোলাররা যে পরিমাণ সুইং পান, সেটার ওপর লালার প্রভাব সামান্য বা কোনো প্রভাব নেই। খেলোয়াড়রা বল চকচকে করার জন্য যে ঘাম ব্যবহার করেন, সেক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। নতুন আইন অনুসারে, বলের ওপর লালা ব্যবহারের অনুমতি আর নেই।’

আরও পড়ুন

×