করোনাভাইরাসের কারণে নিরপেক্ষ ভেন্যু হিসেবে এএফসি কাপের গ্রুপের 'ডি' খেলা হবে মালদ্বীপের মালেতে। ১৪ মে শুরু হওয়ার কথা এই গ্রুপের খেলাগুলো। 

কিন্তু মালদ্বীপে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায়, দেশটিতে রাতে কারফিউ জারি করা হয়েছে। তার মধ্যে মালদ্বীপের সাবেক রাষ্ট্রপতি নাশিদ কামাল বোমা হামলায় আহত হওয়ায় এএফসি কাপ নিয়ে দেখা দেয় অনিশ্চয়তা। সব বিবেচনায় নিয়ে মালদ্বীপ ফুটবল ফেডারেশন প্রতিযোগিতা পিছিয়ে দেওয়ার জন্য যে অনুরোধ করেছিল, তাতে সায় দেয়নি এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন। তাই হাঁফ ছেড়ে বেঁচেছে এএফসি কাপে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করা একমাত্র দল বসুন্ধরা কিংস। 

মালদ্বীপের ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি হওয়ায় এই টুর্নামেন্ট আয়োজন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন। এতে মালদ্বীপ ফুটবল ফেডারেশনও এএফসিকে বিষয়টি জানিয়েছিল গত পরশু দিন। কিন্তু তত দিনে অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর টিকিট, হোটেল সব কনফার্ম হয়ে গেছে। এজন্য এএফসি টুর্নামেন্ট চালিয়ে যাওয়ার পক্ষেই রয়েছে।

করোনা মহামারির কারণে এএফসি গতবার মাত্র একটি ম্যাচ খেলে ছিল বসুন্ধরা কিংস। পরে বাতিলই হয়ে যায় ওই আসরটি। এই মৌসুমে আর সেই ভাগ্য বরণ করতে হচ্ছে না তাদের। এশিয়ান ক্লাব ফুটবলের দ্বিতীয় সেরা আসরটির ডি গ্রুপের ম্যাচ সময়মতোই মাঠে গড়াচ্ছে। এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে ফুটবল বিষয়ক ওয়েবসাইট 'গোল ডটকম'।

বাংলাদেশে লকডাউন, ফ্লাইট জটিলতার কারণে এএফসি কাপ থেকে আবাহনীকে বাদ দিয়েছে এশিয়ান ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। তবে সরাসরি মূল পর্বে খেলছে বসুন্ধরা কিংস। ১১ মে ভারতের বেঙ্গালুরু ও মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টসের প্লেঅফ ম্যাচ রয়েছে। সেই ম্যাচ খেলতে আজ বেঙ্গালুরু মালদ্বীপের উদ্দেশে রওনা হয়েছে। বেঙ্গালুরু গোয়া থেকে পূর্ণ শক্তির দল নিয়ে গেলেও চূড়ান্ত পর্ব নিশ্চিতকারী দল অ্যাতলেটিকো মোহনবাগান ছন্নছাড়া অবস্থায়। তাদের বিদেশি ফুটবলার এখনও যোগ দেয়নি। পূর্ণাঙ্গ ক্যাম্পও শুরু হয়নি। ভারতের ক্লাব অ্যাতলেটিকো মোহনবাগান চেয়েছিল টুর্নামেন্টটি পেছাতে। তারা এএফসি ও স্বাগতিকদের সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনাও করেছে। স্বাগতিক মালদ্বীপ তখন টুর্নামেন্ট আয়োজনে প্রস্তুত থাকায় তারা সেই আবেদনে সাড়া দেয়নি। বসুন্ধরা কিংস আগামী পরশু দিন রওনা হবে মালদ্বীপের উদ্দেশে। দলগুলো মালদ্বীপ পৌঁছে যাওয়ার পর আর টুর্নামেন্ট পেছানোর সুযোগ থাকছে না।

মন্তব্য করুন