ঢাকা শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

জয়ের ক্ষণ গুনছে বাংলাদেশ

জয়ের ক্ষণ  গুনছে  বাংলাদেশ

গতকাল শেষ বেলায় দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে জেমিসনকে এলবির ফাঁদে ফেলার পর শূন্যে লাফিয়ে তাইজুলের উদযাপন এএফপি

জহির উদ্দিন মিশু, সিলেট থেকে

প্রকাশ: ০২ ডিসেম্বর ২০২৩ | ০১:৫৫ | আপডেট: ০২ ডিসেম্বর ২০২৩ | ০৭:৫৭

সিলেট স্টেডিয়ামের খুব কাছেই উপমহাদেশের সবচেয়ে প্রাচীন চা বাগান মালনীছড়া। ১৮৫৪ সালে লর্ড হার্ডসন প্রায় ১৫০০ একর জমির ওপর এটি প্রতিষ্ঠা করেন। এই মালনীছড়া থেকে ১০ মিনিট দূরে লাক্কাতুরা চা বাগান। উঁচু-নিচু টিলার পর টিলায় ভরা চা বাগানটির যেন মধ্যমণি হয়ে দাঁড়িয়ে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম। যেখানে ইতিহাস লেখার দাঁড়িয়ে শান্ত-মুশফিকরা। জয় থেকে স্রেফ ৩ উইকেট দূরে বাংলাদেশ। ৩৩২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে গতকাল চতুর্থ দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে ১১৩ রান তুলতেই ৭ উইকেট হারিয়েছে নিউজিল্যান্ড।

এই জয়ে ইতিহাস হবে এই কারণে, এই প্রথম ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডকে হারানোর স্বাদ মিলবে। এর আগে কিউইদের সঙ্গে জয় পেয়েছে ঠিক, কিন্তু নিজেদের দর্শকদের সামনে সেই উদযাপনটা করা হয়নি। এবার সেই সুযোগ বাংলাদেশের সামনে। সেই সঙ্গে টেস্ট খেলা এলিট দলগুলোর বিপক্ষে এটা হবে বৃত্ত ভাঙার জয়ও। কেননা অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ভারত, ইংল্যান্ডের মতো দলগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের জয় একটা করেই। এবার সেই এককে দুই করার পালা। পাশাপাশি টেস্টের ১৯তম জয়ও দেখা হবে টাইগারদের। এখন পর্যন্ত এই ফরম্যাটে সবচেয়ে বেশি আটটি জয় এসেছে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। আর চারটি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে।

তাই তো নিউজিল্যান্ডকে দ্বিতীয় হারের তিক্ততা দিতে পারলে ভালো লাগবে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদেরও। সংবাদ সম্মেলনে এসে তাইজুল ইসলামও তেমনটা বলেছেন, ‘অবশ্যই, বড় দলকে হারানোর মজাই আলাদা।’

এই ম্যাচের আগে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১৮ টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ। যেখানে ওই একটাই জয়, যেটা ২০২২ সালে মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে উদযাপন করেছিল বাংলাদেশ। এখন সিলেটে আরেকটি উদযাপনের অপেক্ষা। তৃতীয় দিন নাজমুল হোসেন শান্তর সেঞ্চুরি আর চতুর্থ দিনে তাইজুল ইসলামের ঘূর্ণিতে সেই স্বপ্নটা দারুণভাবে দেখছে বাংলাদেশ। পাশাপাশি মুশফিক এবং মিরাজও রেখেছেন অবদান। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ পায় ৩৩১ রানের বড়োসড়ো লিড, যা সিলেটের স্পিনবান্ধব উইকেটে করাটা যে মহাকঠিন, সেটা এরই মধ্যে টের পেয়েছে নিউজিল্যান্ড।

৩৩২ রান করার আশায় নেমেই চাপে পড়ে তারা। দলের রানের খাতা খোলার আগেই আউট হয়ে যান ওপেনার টম লাথাম। এর পর ১৯ রান তুলতেই সবচেয়ে অভিজ্ঞ কেন উইলিয়ামসনকে প্যাভিলিয়নে পাঠান তাইজুল ইসলাম। প্রথম ইনিংসে এই উইলিয়ামসনের ক্যাচ মিসের পর তাঁর উইকেট শিকার করেছিলেন তাইজুল। গতকালও যখন বোলিংয়ে আসেন, তখন স্ট্রাইকে উইলিয়ামসনকে দেখে দলনেতা শান্ত বোধ হয় বলে দেন এই উইকেট তোমাকেই নিতে হবে। শেষ পর্যন্ত তাই হলো। তাইজুলের এলবির ফাঁদে পা দেন উইলিয়ামসন। ম্যাচ শেষে এ নিয়ে তাইজুলের কাছে জানতে চাওয়া হয়। তিনি খানিকটা হেসেই বলেন, ‘দেখুন ভাই, ৯ বছর তো খেলছি। হয়তো সবাই এ জন্যই আমার ওপর তখন আস্থা রাখে। তবে কোনোকিছু পরিকল্পনা করে করা হয়নি।’

দু’বার কেন উইলিয়ামসনের উইকেট নেওয়া, এর পর নিউজিল্যান্ডের জুটি একের পর এক তছনছ করা তাইজুল তো ধন্যবাদ পেতেই পারেন। প্রতিপক্ষ স্পিনার এজাজ প্যাটেল অবশ্য ধন্যবাদ না দিলেও তাঁর বোলিংয়ের সুনাম করেছেন। তবে তাইজুল-মিরাজদের ব্যবহারটা চমৎকারভাবে করছেন অধিনায়ক শান্ত। এই টেস্ট দিয়ে তিনি দলনেতা হিসেবে নতুন ঘরে নাম লেখান। তাই জিতলে তাঁর কৃতিত্বও কম হবে না। তবে এই ম্যাচের আশাও ছাড়তে নারাজ নিউজিল্যান্ড। সংবাদ সম্মেলনে আসা দলটির স্পিনার এজাজ তেমনটাই মনে করিয়ে দেন। বাংলাদেশের চাই তিন উইকেট। আর নিউজিল্যান্ডের করতে হবে ৩ উইকেট নিয়ে ২১৯ রান। কার পথ কঠিন। কে পাবে গন্তব্যের দেখা। আজই মিলে যাবে সেই উত্তর।

আরও পড়ুন

×