গত বছরের নভেম্বরে ঘরের মাঠে নেপালের বিপক্ষে সিরিজে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ জাতীয় দলের স্কোয়াডে জায়গা পেলেও ইনজুরির কারণে ছিটকে যান ফিনল্যান্ড প্রবাসী ফুটবলার তারিক কাজী। 

বসুন্ধরা কিংসের জার্সিতে খেলার খুব একটা সুযোগ না পাওয়ায় হিমালয়ের দেশে গত মার্চে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টেও দলে জেমি ডের দলে জায়গা হয়নি তার। কিন্তু প্রিমিয়ার লীগের দ্বিতীয় পর্বে কিংসের জার্সিতে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের সঙ্গে ডিফেন্ডার বিশ্বনাথ ঘোষের ইনজুরিতে কপাল খুলে যায় তারিকের। 

কাতারে অনুষ্ঠেয় বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের তিন ম্যাচের জন্য বাংলাদেশ দলে ডাক পাওয়া ফিনল্যান্ড প্রবাসী এ ফুটবলার এখন আলোচনায়। ২০১৯ সালে বসুন্ধরা কিংসের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়া তারিককে নিয়ে বেশি আলোচনা হয়েছে। ডেনমার্ক প্রবাসী জামাল ভূইয়ার পর দ্বিতীয় প্রবাসী ফুটবলার হিসেবে লাল সবুজের জার্সিতে খেলার অপেক্ষায় তিনি। 

দোহায় বৃহস্পতিবার আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব। প্রথম ম্যাচে স্বপ্নপূরণ হতে পারে তারিকের। কারণ বিশ্বনাথ না থাকায় কোচ জেমি ডেও ইঙ্গিত দিয়েছেন ডিফেন্সে তারিক কাজিকে খেলানোর। 

প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের জার্সি গাঁয়ে জড়ানোর অপেক্ষায় এ ফুটবলারও বেশ রোমাঞ্চিত,' আমি ব্যক্তিগতভাবে শিহরিত। প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের জার্সি গাঁয়ে জড়াতে চাই। যদি সুযোগ পাই,তাহলে নিজের সেরাটা মেলে ধরার চেষ্টা করব।'

প্রবাসী ফুটবলার হিসেবে বাংলাদেশ দলে সুযোগ পাওয়া জামাল ভূইয়া তো এখন দেশের ফুটবলের পোস্টারবয়। নেতৃত্ব দিচ্ছেন জাতীয় দলকে। বাছাইয়ের তিন ম্যাচের মধ্যে যেকোনো একটিতে যদি খেলার সুযোগ পান তারিক, তাহলে একসঙ্গে দুই প্রবাসী ফুটবলারের লাল সবুজের জার্সি গাঁয়ে জড়ানোটা হবে নতুন কিছু। 

সেই নতুন কিছুর স্বপ্ন দেখার সঙ্গে বাছাইয়ে ভাল করতে মুখিয়ে কিংসের এ ডিফেন্ডার,'কাতারে আমরা ভাল অনুশীলন করছি। তিনটি ম্যাচ খেলার জন্য সবাই রোমাঞ্চিত। আফগানিস্তান, ওমান এবং ভারত ম্যাচ নিয়ে আমরা পরিকল্পনা করছি। আশা করি এই ম্যাচগুলোতে ভাল কিছু হবে।'