দলের সেরা খেলোয়াড় লিওনেল মেসি। ক্লাব কিংবা জাতীয় দল যেখানেই খেলেন না কেন, মেসিকে ঘিরেই থাকে দুই দলের কোচের মূল পরিকল্পনা। বয়সটাও কম নয়, এই বৃহস্পতিবার ৩৪ বছর পূর্ণ করবেন লিওনেল মেসি। ফুটবলারদের জন্য যেটি শেষ সময়। এই বয়সে এসেও পারফরম্যান্সের কোন কমতি নেই আর্জেন্টাইন এই তারকার। 

বার্সেলোনা কিংবা আর্জেন্টিনা জাতীয় দল। লিওনেল মেসি থাকেন শুরু থেকেই। এতে বিশ্রামের সময়টুকুও পান না এই জাদুকর। এই বয়সে টানা খেলে মেসির শরীরে যে ধকল যায়, তা বুঝতে পারে দলের কোচও। তাইতো প্যারাগুয়ের বিপক্ষে মেসিকে বিশ্রামে রাখতে চেয়েছিল দলের কোচ লিওনেল স্কালোনি। শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্ত রাখতে পারেনি আর্জেন্টিনা কোচ। দলের মূল খেলোয়াড়কে মাঠে না নামানোর মত দুঃসাহস দেখায়নি তিনি। বরং উরুগুয়ের বিপক্ষে খেলা পাঁচ জনকে বিশ্রাম দিলেও মেসিকে খেলিয়েছেন।

মঙ্গলবার সকালে প্যারাগুয়েকে ১-০ গোলে হারিয়ে কোপা আমেরিকার শেষ আটে পা রাখা নিশ্চিত করে আর্জেন্টিনা। এই ম্যাচ দিয়েই আর্জেন্টিনার হয়ে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার রেকর্ডে হাভিয়ের মাসচেরানোকে স্পর্শ করেন মেসি। দুজনেরই ম্যাচ এখন ১৪৭টি।

আগের দুই ম্যাচের মত প্যারাগুয়ের বিপক্ষেও পূর্ণ সময় মাঠে থাকেন মেসি। টানা খেলার ধকলও বুঝতে দেননি তিনি। প্রথম ম্যাচে চিলির বিপক্ষে ৬৬ বার বলে স্পর্শ ছিল মেসির, যা ছিল দলের সর্বোচ্চ। পরের ম্যাচে উরুগুয়ের বিপক্ষে ৭৮ বার স্পর্শ করেছেন বল। আর প্যারাগুয়ের বিপক্ষে মেসির থেকে বেশিবার বল স্পর্শ করেছেন শুধু ডিফেন্ডার নাউয়েল মোলিনা।

প্যারাগুয়ের বিপক্ষে মেসিকে বিশ্রামে না রেখে খেলানোর কারণ হিসেবে স্কালোনি জানান, ‘আমরা বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ খেলে কোপায় খেলতে এসেছি। মেসি আমাদের সব ম্যাচেই মাঠে নেমেছে। তার উপর নির্ভরতা না করার কারণ নেই।’ 

তবে আশার কথা, বলিভিয়ার বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে মাঠে নামার আগে ৬ দিনের বিশ্রাম পাবে আর্জেন্টিনা।