একুশতম বারের মত কোপার ফাইনালে উঠলো ব্রাজিল। এর আগে ২০ বার ফাইনাল খেলে নয়বার জিতেছে নেইমারের দেশ। ২০১৯ সালের ফাইনালে যাদেরকে হারিয়েছিলেন নেইমাররা, সেই পেরুকেই এবার সেমিফাইনালে ১-০ গোলে হারিয়ে তারা ফাইনালে গেলেন। 

পেরুর বিপক্ষে প্রথম থেকেই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ ছিল ব্রাজিলের হাতে। ম্যাচের ৩৫ মিনিটে পেরুর রক্ষণভাগের সঙ্গে একরকম ছেলেখেলা করেই ডি-বক্সের বাঁদিকে বিপজ্জনকভাবে ঢুকে যান নেইমার। তিনজন ডিফেন্ডার চেষ্টা করেও উদ্যমী নেইমারের পা থেকে বল কেড়ে নিতে পারেননি। পরে নেইমার ব্যাকপাস দিয়ে বল পাঠিয়ে দেন মাঝখানে অপেক্ষায় থাকা মিডফিল্ডার পাকুয়েতার দিকে। নেইমারের দিকে এগিয়ে যাওয়া গোলকিপার পেদ্রো গ্যালেসের ফাঁকা গোলপোস্টে বল ঠেলে দিতে সমস্যা হয়নি পাকুয়েতার। তার গোলেই ১-০ হয় স্কোরলাইন।

ফাইনালে ওঠার পর নেইমার বললেন, পাকুয়েতা এখন দলের বড় আস্থার নাম। সে দুর্দান্ত ফুটবলার। প্রতিটি ম্যাচেই সে আরও ভালো হয়ে উঠছে। ক্লাবের হয়ে দুর্দান্ত একটি মৌসুম কেটেছে তার এবং এখানেও দেখাচ্ছে যে, ব্রাজিলের হয়ে সে কতটা গুরুত্বপূর্ণ ফুটবলার হতে পারে।

নেইমারের দুর্দান্ত পাসে ম্যাচ সেরার পুরস্কারও উঠলো তার হাতে। গোল না পেলেও, গোল করালেন। আর পুরো ম্যাচে নিজের ম্যাজিক দেখালেন। চলতি কোপা আমেরিকায় এখনও পর্যন্ত ৪৬টা ড্রিবল করেছেন নেইমার। এই তালিকায় দুই নম্বরে রয়েছেন মেসি। তিনি করেছেন ৪০টি ড্রিবল।

শিরোপা ধরে রাখার ম্যাচে আগামী রোববার বাংলাদেশ সময় ভোর ৬টায় মাঠে নামবে ব্রাজিল। সেখানে তাদের প্রতিপক্ষ আর্জেন্টিনা ও কলম্বিয়ার সেমিফাইনালে জয়ী দল।