বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তিতে এবার বিয়েবার্ষিকী, জন্মদিন বা বিশেষ অনুষ্ঠানের তালিকা দিতে হয়েছে ক্রিকেটারদের। বিশেষ দিনগুলোতে খেলোয়াড়দের যাতে ছুটিছাটা নিয়ে সমস্যায় পড়তে না হয় সে জন্য এ উদ্যোগ।

লিটন কুমার দাস তার বিবাহবার্ষিকীর দিন-তারিখ উল্লেখ করেছেন কিনা জানা নেই। না করে থাকলেও সমস্যা নেই। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হোম সিরিজ থেকে ছুটি নেওয়ায় এবার বিবাহবার্ষিকী পালনের সুযোগ পেয়ে যাচ্ছেন তিনি। উইকেটরক্ষক এ ব্যাটসম্যানের দ্বিতীয় বিবাহবার্ষিকী আজই। সমকাল পরিবারের পক্ষ থেকে লিটন কুমার দাস ও তার স্ত্রী দেবশ্রী বিশ্বাস সঞ্চিতকে অভিনন্দন।

বিসিবি ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান আকরাম খান সোমবার জানান, শ্বশুর ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ায় হোম সিরিজ থেকে ছুটি নিয়েছেন লিটন। সোমবার রাতে জিম্বাবুয়ের হারারে থেকে দেশে ফেরার বিমান ধরেন ২৬ বছরের এ ক্রিকেটার। সবকিছু ঠিক থাকলে গতকাল রাতেই এমিরেটস এয়ারলাইন্সে ঢাকায় পৌঁছে গেছেন তিনি। আর পৌঁছে থাকলে রাত ১২টা ১ মিনিটে প্রিয়তমা স্ত্রী সঞ্চিতকে শুভেচ্ছা জানানোরই কথা। বায়োসিকিউর বাবল বা খেলার তাড়না না থাকায় স্ত্রীকে কয়েকটা দিন সময় দিতে পারবেন তিনি।

লিটনের এই খুশির দিনে দেশে ফেরার পথে থাকবেন তার জাতীয় দল সতীর্থরা। আগামীকাল ঢাকায় পৌঁছে বিমানবন্দর থেকে সোজা ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে বায়োসিকিউর বাবলে উঠতে হবে তাদের অসিদের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি২০ সিরিজ খেলতে। সিরিজটি লিটনেরও খেলার কথা ছিল। পারিবারিক কারণে ছুটি নিতে না হলে দলের সঙ্গে ঢাকার হোটেলে উঠতে হতো তাকেও। এদিক থেকে লিটনকে সৌভাগ্যবান বলতেই হয়। ছুটিতে থেকে শ্বশুরকে দেখভালের পাশাপাশি বিবাহবার্ষিকীটাও পালন করতে পারছেন!

অবশ্য দলে থাকলেও সিরিজের সব ম্যাচ খেলা হতো না তার। বাঁ ঊরুর সামনের পেশিতে টান থাকায় প্রথম দুটি ম্যাচে রিজার্ভ বেঞ্চে থাকতেন। চোট সেরে গেলে খেলতে পারতেন পরের ম্যাচ তিনটি। যদিও গ্রেড ওয়ান টিআর থাকায় তৃতীয় ম্যাচ থেকে খেলার নিশ্চয়তা দেওয়া যায় না। সেদিক থেকে অনিশ্চয়তা নিয়ে হোটেলবাসের চেয়ে পরিবারের সঙ্গে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়ে হয়তো ভালোই করেছেন লিটন। সুস্থ ও চনমনে হয়ে খেলতে পারবেন নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সেপ্টেম্বরের হোম সিরিজটি। কিউইদের বিপক্ষেও পাঁচ ম্যাচের টি২০ সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ।