দুই ম্যাচ খেলা বাংলাদেশের দুই গোলদাতা কোনো ফরোয়ার্ড নন, দু'জনেই ডিফেন্ডার। নেপালের কাছে পরাজিত হওয়া মালদ্বীপ এখনও গোল করেনি। তারপরও সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের এবারের আসরে শক্তিশালী আক্রমণভাগ ধরা হচ্ছে মালদ্বীপকেই। অভিজ্ঞ আলি আশফাকের সঙ্গে আলি ফাসিরের মতো ফরোয়ার্ডের সামনে বাংলাদেশ। পরিস্থিতি বিবেচনা করলে বাংলাদেশের রক্ষণের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ আজকের ম্যাচে। বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের ম্যাচটি শুরু হবে রাত ১০টায়। 

কিন্তু অন্তর্বর্তীকালীন কোচ অস্কার ব্রুজোনের কাছে রক্ষণাত্মক কৌশল বরাবরই অপছন্দ। আক্রমণাত্মক ফুটবলের পসরা সাজিয়ে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করাটাই হলো স্প্যানিশ এ কোচের মূল তত্ত্ব। যে কারণে ফুটবলবোদ্ধাদের মতে, মালের ন্যাশনাল ফুটবল স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার স্বাগতিক মালদ্বীপ ও বাংলাদেশের মধ্যকার লড়াইটি হতে যাচ্ছে দু'দেশের আক্রমণভাগের মধ্যে লড়াই। সুমন রেজা-মতিন মিয়ারা গোল না পেলেও অ্যাটাকিং ফুটবল খেলে মালদ্বীপের বিপক্ষে তিন পয়েন্ট টার্গেট বাংলাদেশ কোচের।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়, ভারতের সঙ্গে ড্র। দুই ম্যাচে ৪ পয়েন্ট পাওয়া বাংলাদেশ ফাইনালের পথে ভালোভাবেই টিকে আছে। আজ মালদ্বীপকে হারাতে পারলে ২০০৫ সালের পর আবারও সাফের ফাইনালে ওঠাটা অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে যাবে লাল-সবুজের দলটির। কিন্তু জিততে হলে তো ফরোয়ার্ডদের গোল করতে হবে। 

স্ট্রাইকাররা গোল পাচ্ছেন না বলে উদ্বিগ্ন নন ব্রুজোন; বরং গতকাল ম্যাচ-পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে ফরোয়ার্ডদের হয়ে কথা বলেছেন ব্রুজোন, 'আপনারা দেখেছেন ডিফেন্ডার গোল করেছে। আমি দেখছি, জামালের কর্নারে রাকিবের ফ্লিক, এরপর ইয়াসিনের হেড। শ্রীলঙ্কা ম্যাচে পেনাল্টি আদায়ও হয়েছে ফরোয়ার্ডদের মাধ্যমে।'

ভারত ম্যাচে বড় হুমকি ছিলেন সুনীল ছেত্রি। গোলও করেছিলেন তিনি। মালদ্বীপের বিপক্ষে বাংলাদেশের দুশ্চিন্তা একজন নন, দু'জন- আলি আশফাক ও আলি ফাসির। আশফাক তো দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম সেরা ফরোয়ার্ড। দেশের হয়ে গোলের হাফ সেঞ্চুরিও করেছেন ৩৬ বছর বয়সী এ গোলমেশিন। 

মালদ্বীপের ক্লাব নিউ রেডিয়েন্টের কোচ ছিলেন বলে আশফাককে সামনে থেকে দেখেছেন অস্কার। তাই এ ফরোয়ার্ডকে থামানোর জন্য পরিকল্পনা নিয়েছেন বলে জানান তিনি, 'অবশ্যই তাকে থামানোর পরিকল্পনা আছে। তবে সেটা এখানে প্রকাশযোগ্য নয়। শুধু এটুকু বলতে পারি, আগামীকাল (আজ) বাংলাদেশের সেরা রক্ষণ দেখা যাবে।' 

কিন্তু রক্ষণভাগের অন্যতম ভরসা বিশ্বনাথ ঘোষ লাল কার্ডের কারণে আজকের ম্যাচে নেই। দুটি হলুদ কার্ডের কারণে খেলতে পারবেন না রাকিব হোসেন। দুই গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় না থাকলেও চিন্তিত নন বাংলাদেশ কোচ।