সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়ার সময় ফাইনালের খেলার আশাবাদ ব্যক্ত করে গিয়েছিলেন বাংলাদেশ ফুটবল দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া। দুর্দান্ত ফুটবল উপহার দিয়ে সেই লক্ষ্যের একদম কাছাকাছিও পৌঁছে গিয়েছিল তারা। কিন্তু ম্যাচের শেষ দিকে জিকোর লাল কার্ড ও বিতর্কিত পেনাল্টিতে স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে বাংলাদেশের।

লাল-সবুজ ফুটবলারদের হতাশার মুহূর্তে আনন্দে মেতে ওঠেন নেপালিরা। বাংলাদেশ ১৮ বছর পর সাফের ফাইনালে উঠতে ব্যর্থ হলেও নেপাল এই প্রথম সাফের ফাইনালে উঠে গড়েছে ইতিহাস। ২০০৩ সাফ চ্যাম্পিয়নদের এই ফাইনালে খেলতে না পারার জন্য বাংলাদেশ কোচ সরাসরি দায়ী করেন রেফারিকে।

কারো নাম উল্লেখ না করে অস্কার ব্রুজোন বলেন, 'ভারতের বিপক্ষ ড্রয়ের পর থেকেই আমাদের পেছনে যেন কোনো অশুভ শক্তি লেগেছে। বাংলাদেশকে তারা উঠতে দিতে চায় না। আজ সে জন্যই এমন পেনাল্টি দেওয়া হলো। আমরা সবাই ভেবেছিলাম রেফারি গোল কিকের বাঁশি বাজিয়েছেন, অথবা ডাইভিংয়ের, সেখানে এই সিদ্ধান্ত! আমরা হতবাক।'

ব্রুজোন আরও বলেন, 'আমরা এই টুর্নামেন্টের সেরা না হলেও অন্যতম সেরা দল ছিলাম। আমার খেলোয়াড়রা মাঠে সেটা দেখিয়েছে। ভারত ম্যাচের পরই বলেছিলাম, বাংলাদেশের ফুটবল এখনো মরেনি। কিন্তু অদৃশ্য কোনো একটা শক্তি যেন আমাদের উঠতে দিতে চাইছে না। তারা চায়নি বাংলাদেশ ফাইনালে খেলুক। এটা আগস্টে এই মালে স্টেডিয়ামে হওয়া এএফসি কাপের সময়ও হয়েছে। বাজে রেফারিংয়ের শিকার হয়ে তখন বসুন্ধরা কিংসকে শেষ ম্যাচে ড্র করে বিদায় নিতে হয়েছিল। এবার বাংলাদেশকে। তখনও বসুন্ধরা কিংস ছিল ১০ জনের। আর এবার বাংলাদেশ দল।

টানা চারটি সাফে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায়ের পর বাংলাদেশ এই আসরে শিরোপা জয় নয়, ফাইনালে ওঠার কথাই ভাবছিল। সেই ফাইনালের খুব কাছে এসে এভাবে ফেরা বাংলাদেশের উন্নতিটাকে মুছতে পারবে না বলেই মনে করেন স্প্যানিশ এই কোচ।