পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪২ রানে হারলো বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। ম্যাচের শুরুতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২২৮ রান সংগ্রহ করে শ্রীলঙ্কা অনূর্ধ্ব-১৯ দল। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১৮৬ রানেই থেমেছে টাইগার যুবাদের ইনিংস।

ডাম্বুলায় ২২৯ রানের জবাবে নেমে ৩১ রানে নিজেদের প্রথম উইকেট হারায় টাইগার যুবারা। এরপর ৪ রানের ব্যবধানে ৩ উইকেট হারায় তারা। শুরুর বিপর্যয় সামলে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন আইচ ও আরিফুল। দুজনের জুটিতে আসে ৭০ রান। আরিফুল ইসলাম ৩৮ রানে সাজঘরে ফিরলে ভাঙে তাদের এই জুটি। 

এরপর আবারও ব্যাটিং ধস। পরবর্তী ৩০ রান করতে আরও ৩ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ব্যাটসম্যানদের আসা যাওয়ার মিছিলে একপ্রান্তে আশার প্রদীপ হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন আইচ।  মাত্র ১৪ রানের জন্য এদিন সেঞ্চুরির আক্ষেপেও পুড়তে হয়েছে আইচকে। ৯৩ বলে ৮৬ রানের ইনিংস খেলার দিনে ৯টি চার মেরেছেন তিনি। তাকে হারিয়ে ৪২ রানের হার দেখতে হয় বাংলাদেশকে। শ্রীলঙ্কার হয়ে চারটি উইকেট নিয়েছেন ত্রিভিন ম্যাথুস।

এর আগে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৩২ রানেই ৩ ব্যাটসম্যানকে হারায় শ্রীলঙ্কার যুবারা। ৪ রানে জায়াবের্দেনা, ১৩ রানে সাসেন এবং ১২ রানে আউট হন শেভন ড্যানিয়াল।

চতুর্থ উইকেটে রাজাপাকশা এবং পঞ্চম উইকেটে রবিন ডি সিলভাকে সঙ্গে নিয়ে চাপ সামলে নেন পাওয়ান পাথিরাজা। ২৮ রান করে রাজাপাকশা এবং ২৯ রানে আউট হন ডি সিলভা। আর আউট হওয়ার আগে ব্যক্তিগত অর্ধশতক পূর্ণ করেন পাথিরাজা। ব্যক্তিগত খাতায় তার সংগ্রহ ৬৭ রান। আর শেষদিকে ১৫ বলে ২৫ রান করে অপরাজিত থাকেন ইয়াসিরু রদ্রিগো।

বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব- ১৯ দলের হয়ে সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট নেন রিপন মণ্ডল। এছাড়া দুটি উইকেট নেন আসিকুজ্জামান। আর একটি করে উইকেট নিয়েছেন চারজন বোলার।