বাছাইপর্বে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে হেরে সমালোচনার তীরে বিদ্ধ বাংলাদেশ ক্রিকেটাররা। একটা সময় বাছাইপর্ব থেকেই ছিটকে যাবার সম্ভাবনা ছিল বাংলাদেশের। ওমান ও পাপুয়া নিউগিনিকে হারিয়ে এই বাঁধা অতিক্রম করেছে টাইগাররা। তবে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে নয়, বাংলাদেশ মূল পর্বে গেছে রানার্স আপ হয়ে।

মূলপর্ব নিশ্চিত হলেও স্কটল্যান্ডের বিপক্ষ হার এখনো সহ্য করতে পারছে না টাইগার সমর্থকরা। টেস্ট খেলুড়ে দেশ হয়ে অ্যাসোসিয়েট দেশের বিপক্ষে হেরে ক্ষোভ ঝেড়েছেন বিসিবি বস নাজমুল হাসান পাপনও। গণমাধ্যমে দলকে ধুয়ে দিয়েছেন তিনি। উনার বেফাঁস মন্তব্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে দলের অন্দরমহলে।

পাপুয়া নিউগিনিকে হারানোর পর ভরাট কন্ঠে নিজেদের হতাশা প্রকাশ করেছিলেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। তবে বাইরের এসব কথায় কান দিতে চান না কোচ ডমিঙ্গো। তিনি বলেন, 'বাইরে কে কি বললো তাতে কান দেওয়া আমার কাজ নয়। আমার লক্ষ্য শুধু দলকে পরবর্তী ম্যাচের জন্য মানসিক ও শারীরিকভাবে প্রস্তুত করা।'

গ্রুপ-১ তে বাংলাদেশের সবগুলো ম্যাচের সময় পড়েছে বাংলাদেশ সময় বিকেল চারটায়। এতে বাংলাদেশের সুবিধা হয়েছে বলে মনে করছেন অনেকেই। শ্রীলঙ্কা ম্যাচের আগে ডমিঙ্গোও সেই সুবিধার কথা বললেন, 'এই গ্রুপের সময়সূচি আমাদের বিরাট সুবিধা দেবে। বাকি দলগুলো চিন্তা করছে শিশির নিয়ে। আমাদের সেই দিক থেকে চিন্তা করতে হচ্ছে না। কন্ডিশনের জন্য আমাদের স্পিনাররা সুবিধা পাবে। তবে বিশ্বকাপের এই পর্যায়ে প্রতিটা দলই শক্ত।'

সুপার টুয়েলভে টাইগারদের ব্যাটিংয়ে আরো উন্নতির ছাপ দেখতে চান ডমিঙ্গো। তিনি বলেন, 'উন্নতির জায়গা সবসময়ই থাকে। আমার মনে হয় আমাদের ব্যাটিং গত তিন ম্যাচে শতভাগ সন্তোষজনক ছিলনা। এই জায়গায় উন্নতি করতে চাই। এছাড়া বোলিং ফিল্ডিং নিয়ে আমি সন্তুষ্ট। এখানে কন্ডিশন পরখ করারও একটা ব্যাপার থেকে যায়। ওমান থেকে এখানকার উইকেট বা মাঠ আলাদাই হবে।'

শারজাহর উইকেটে আইপিএল থেকেই দেখা যাচ্ছে রানখরা। ডমিঙ্গো মনে করেন এই উইকেটে স্পিনারদের পাশাপাশি পেসাররাও সুবিধা পাবে, ছোট মাঠের জন্য সুবিধা হবে ব্যাটসম্যানদেরও। তিনি বলেন, 'শারজাহর নতুন উইকেটে রান কম হয়। আমি সর্বশেষ শারজাহতে এসেছিলাম দক্ষিণ আফ্রিকা দলের কোচ হিসেবে। সেই সফরে মরনে মরকেল ভালোই করেছিল। স্পিনারদের বলও নিচু হবে, এলবিডব্লিউ এর সুযোগ বাড়বে। আমরা খুব ভালো পাওয়ার হিটিং সাইড না তাই ছোট বাউন্ডারি সুবিধা হতে পারে আমাদের জন্য।'