ভারতের পর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে পাকিস্তান। শুরুতে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৩৪ রানে থেমেছে কিউইরা। জবাবে ৫ উইকেট হাতে রেখে ৮ বল বাকি থাকতেই জয় নিশ্চিত করে পাকিস্তান। এর মধ্য দিয়ে গ্রুপ টেবিলের শীর্ষে উঠে এলো দলটি।

এতদিন পাকিস্তানের চরম শত্রু ছিল কেবল প্রতিবেশী ভারত। গত মাস থেকে সে তালিকায় যোগ হয়েছে নিউজিল্যান্ড। আজ শারজাহতে সেই নতুন শত্রু নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে দিল পাকিস্তান। গত মাসে সিরিজ শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে হুট করেই সিরিজ বাতিল করে পাকিস্তান ছেড়ে যায় নিউজিল্যান্ড। এরপরই নিউজিল্যান্ডকে নতুন শত্রুর তকমা দিয়েছিলেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) নতুন চেয়ারম্যান রমিজ রাজা। কিউইদের এমন আচরণে তখন পাকিস্তানের ক্রিকেটাররাও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছিলেন। 

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১৩৫ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে চাপে পড়ে পাকিস্তান। দলীয় ২৮ রানেই সাজঘরে ফেরেন অধিনায়ক বাবর আজম।  ভারতের বিপক্ষে ৬৮ রানের ঝলমলে ইনিংস খেলা এ ওপেনার এদিন ফেরেন ১১ বলে মাত্র ৯ রান করে। এরপর নিয়মিত বিরতিতে ফেরেন ফখর জামান (১১) ও মোহাম্মদ হাফিজ (১১)। 

১২তম ওভারে ব্যক্তিগত ১১ রানে ফেরেন মোহাম্মদ রিজওয়ান। দলীয় ৮৭ রানে ইমাদ ওয়াসিমের স্ট্যাম্প উড়িয়ে দেন ট্রেন্ট বোল্ট। সাজঘরে ফেরার আগে ১২ বলে ১১ রান করেন তিনি। শেষদিকে দলের জয় নিশ্চিত করতে ১২ বলে ২৭ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন আসিফ। তার ইনিংসটিতে ছিল ১ চার ও ৩ ছক্কার মার। শোয়েব ২০ বলে করেছেন ২৭ রান। তার ইনিংসেও ছিল ২ চার ও ১ ছক্কা। মাত্র ২৩ বলে ৪৮ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় জয়ের স্বাদ পায় পাকিস্তান। 

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৩৬ রানেই গাপটিলকে হারায় নিউজিল্যান্ড। কিউই এই ওপেনারকে ফেরান হ্যারিস রউফ। ২০ বলে ১৭ রান করেন তিনি। নবম ওভারে ইমাদ ওয়াসিমের বলে ফেরেন আরেক ওপেনার ড্রাইয়েল মিচেল। ২০ বলে ২৭ রান করেন তিনি। স্কোরবোর্ডে আর দুই রান যোগ হতেই হাফিজের শিকার হন নিশাম(১)। 

এরপর দলকে চাপমুক্ত করার আগেই বিদায় নেন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। হাসান আলীর সরাসরি থ্রোতে রান আউট হন তিনি। ফেরার আগে ২৬ বলে ২৫ রান তুলেন তিনি।

দলীয় ১১৬ রানে হ্যারিসের দ্বিতীয় শিকার হন ২৪ বলে ২৭ রান করা কনওয়ে। এক বল পরেই হাসান আলীর ক্যাচ বানিয়ে ফিলিপ্সকে(১৩) ফেরান রউফ। ১৯তম ওভারের শেষ বলে আফ্রিদির বলে হাফিজের ক্যাচ হয়ে ফিরেন টিম সিফের্ট (৮)। ইনিংসের শেষ বলে মিচেল স্যান্টনারের(৬) স্ট্যাম্প উড়িয়ে দেন হ্যারিস রউফ।  এতে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৩৪ রানে থেমেছে কিউইরা। 

২২ রানে ৪ উইকেট নেন হ্যারিস রউফ। একটি করে উইকেট শিকার করেন আফ্রিদি, ইমাদ ও হাফিজ।