নিউজিল্যান্ডের ১৭৩ রানের টার্গেটেও লড়াই করেছে স্কটল্যান্ড। শেষ বল পর্যন্ত খেলে মাত্র ১৬ রানে হেরেছে কাইল কোয়েটজারের দল। ৫ উইকেট হারিয়ে স্কটল্যান্ড থেমেছে ১৫৬ রানে। এতেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শেষ চারে ওঠার পথে আরেক ধাপ এগিয়ে গেল কিউইরা।

১৭৩ রানের লক্ষ্যে স্কটিশদের শুরুটাও হয় দুর্দান্ত। পাওয়ারপ্লের ৬ ওভারে অধিনায়ক কোয়েটজারকে হারিয়ে ৪৮ রান তুলে স্কটিশরা। ষষ্ঠ ওভারে পেসার অ্যাডাম মিলনেকে টানা ৫ বলে ৫টি বাউন্ডারি হাঁকান ম্যাথিউ ক্রস। নিউজিল্যান্ডকে ভয় পাইয়ে দিয়েছিলেন তারা। অষ্টম ওভারে ইশ সোধিকে দুটো ছক্কা হাঁকিয়ে তৃতীয় ছক্কা মারতে গিয়ে আউট হন মানসি(২২)।

মানসির আউটের পর স্কটিশদের গতি কমে যায়। পরের চার ওভারে রান আসে মাত্র ১৩। ক্রস আউট হন ২৭ রান করে। শেষের দিকে দারুণ একটা চেষ্টা করেন মিচেল লিস্ক। কিন্তু তার ২০ বলে ৩টি করে চার-ছয়ে ৪২ রানের ইনিংসটি শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়। নির্ধারিত ওভার শেষে স্কটিশরা থামে ১৫৬ রানে।

এর আগে ব্যক্তিগত শতক থেকে মাত্র ৭ রান দূরে থামলেও গাপটিলের ব্যাটেই ভর করে বড় সংগ্রহ পেয়েছে নিউজিল্যান্ড। ৫৬ বলে ৯৩ রান করে ফিরেছেন কিউই এই ওপেনার। দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে আগে ব্যাটিং করে ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৭২ রান সংগ্রহ করেছে নিউজিল্যান্ড। 

ব্যাট করতে নেমে ৫২ রানের মধ্যে তিন উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। সেখান থেকে ১০৫ রানের ঝড়ো পার্টনারশিপ গড়েন মার্টিন গাপটিল ও গ্লেন ফিলিপস। ৬টি চার ও সাতটি ছয়ের সাহায্যে ৫৬ বলে ৯৩ রান করে আউট হন গাপটিল। তার আগের বলেই ব্র্যাড হুইলের শিকার হন গ্লেন ফিলিপস। ৩৭ বলে ৩৩ রান করেন তিনি। ড্যারিল মিচেল ১৩। কিউই দলপতি কেন উইলিয়ামসন আজ ব্যাট হাতে ব্যর্থ। ৪ বল খেলে রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফিরেছেন তিনি। এরপর ডেভন কনওয়ে ১ রানে আউট হন। জিমি নিশাম ৬ বলে ১০ ও মিচেল স্যান্টনার ২ রানে অপরাজিত থাকেন। স্কটল্যান্ডের পক্ষে ব্রেডলি হোয়েল ও সাফিয়ান শরীফ দুটি করে উইকেট নেন।

সেমিফাইনালে যেতে হলে দুই ম্যাচে ২ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপে তিন নম্বরে থাকা নিউজিল্যান্ডের জন্য জয় ছাড়া বিকল্প কিছু ভাবার সুযোগ নেই। অপরদিকে স্কটল্যান্ডও খেলেছে দুই ম্যাচ। কিন্তু তাদের কোনো জয় নেই। 

নিউজিল্যান্ডের একাদশ:

মার্টিন গাপটিল, ড্যারিল মিচেল, কেন উইলিয়ামসন, জেমস নিশাম, ডেভন কনওয়ে, গ্লেন ফিলিপস, মিচেল সেন্টনার, টিম সাউদি, ইস সৌদি, অ্যাডাম মিলনে ও ট্রেন্ট বোল্ট।

স্কটল্যান্ডের একাদশ:

কাইল কোয়েটজার (অধিনায়ক), জর্জ মানসে, ম্যাথিউ ক্রস, রিচি বেরিংটন, কলাম ম্যাকলিওড, মাইকেল লিয়েস্ক, ক্রিস গ্রেভস, মার্ক ওয়াট, অ্যালাসডাইর ইভান্স, সাফইয়ান শরিফ ও ব্রেডলি হোয়েল।