পরাজয় থেকে বেশি দূরে নেই বাংলাদেশ। চট্টগ্রাম টেস্ট জিততে মাত্র ৯৩ রান করতে হবে পাকিস্তানকে। এই পরিস্থিতিতেও আলোর রেখা দেখতে পান টাইগার প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। আজ সকালে অলৌকিক কিছুর আশা করে আছেন তিনি। প্রথম সেশনে ভালো বোলিং করা গেলে চট্টগ্রাম টেস্টের ফল নিজেদের পক্ষে আনা সম্ভব বলেও মনে করেন কোচ। আলী সেকান্দার চট্টগ্রাম থেকে 


বাংলাদেশের পারফরম্যান্স কীভাবে মূল্যায়ন করবেন?

ডমিঙ্গো :প্রথম দুই দিন সত্যিই ভালো করেছি আমরা। তৃতীয় দিনের সিংহভাগ সময় ভালো ছিল। কিন্তু গতকাল (রোববার) শেষ সেশনে ভালো ব্যাটিং করিনি। যেটা বড় চাপে ফেলে দেয়। যেটা দেখতে হতাশাজনক। সেদিক থেকে দেখলে সত্যিই আমরা খুব ভালো টেস্ট ক্রিকেট খেলেছি। প্রথম ইনিংসে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ স্কোর করেছি। স্পিন ও পেস বোলাররা ভালো বোলিং করে লিড এনে দিয়েছে। তৃতীয় দিন শেষ সেশন খারাপ খেলায় আমরা চাপে পড়ে যাই।

# এখনও ম্যাচে সম্ভাবনা দেখেন?

ডমিঙ্গো :প্রথম সেশনেই বেশিরভাগ উইকেট পড়েছে। সেখান থেকে লড়াই করে ম্যাচে ফেরায় ছেলেদের নিয়ে আমি গর্বিত। তারা ক্যারেক্টার দেখাতে পেরেছে। পাকিস্তান ম্যাচে বেশ এগিয়ে। আর ৯৩ রান প্রয়োজন তাদের। সুতরাং বিশেষ কিছু করা ছাড়া উপায় নেই। টেস্ট ক্রিকেটে যে কোনো কিছু হতে পারে। কাল (আজ) সকালে আমাদের মাঠে আসতে হবে এই বিশ্বাস নিয়ে যে, আমাদের এখনও সুযোগ আছে। প্রথম আধা ঘণ্টায় বা এক ঘণ্টায় আমরা দুই উইকেট নিতে পারলে যে কোনো কিছু হতে পারে।

# চাপের মুখেও লিটন দুই ইনিংসে ১৭৩ রান করেছেন। এই পারফরম্যান্সকে কীভাবে দেখেন?

ডমিঙ্গো :গত ১৮ মাসে লিটনের গড় স্কোর ৬০ রান। আমাদের জন্য সে সত্যিই দুর্দান্ত কিছু ইনিংস খেলেছে। ছয়-সাতে তার জন্য ভালো একটি জায়গা খুঁজে পেয়েছি। লোয়ার অর্ডারে ব্যাট করে আত্মবিশ্বাসটা বাড়িয়ে নিচ্ছে। আমরা জানি, সে দারুণ একজন খেলোয়াড়। আশা করি এক বছরের মধ্যে সে চার-পাঁচ পজিশনে খেলবে।

# টপঅর্ডার ব্যাটাররা টানা দুই ইনিংসে ব্যর্থ। এ নিয়ে কী বলবেন?

ডমিঙ্গো :এটা হতাশাজনক। উইকেট অনুযায়ী তারা যেভাবে আউট হয়েছে তাতে আমরা অখুশি। শেষ টেস্টে সাদমান শতক করেছে। যদিও সেটা পাঁচ-ছয় মাস আগে। আমরা যেটা দেখতে পেলাম, নতুন বলে আমরা চাপে থাকি। আমরা কোয়ালিটি বোলিংয়ের বিপক্ষে খেলছি। সাইফ মাত্র পাঁচ কি ছয় নম্বর টেস্ট খেলছে। সে খুবই অনঅভিজ্ঞ একজন ক্রিকেটার। সাদমান মনে হয় ১০টি টেস্ট খেলেছে। যদিও খুব ভালো বোলিংয়ের বিপরীতে খেলতে হয়েছে। টেস্টে তাদের নিয়ে অনেক কাজ করার আছে।

# সোহানের আউট চাপে ফেলেছে কিনা?

ডমিঙ্গো :মিডিয়ায় খেলোয়াড়দের সমালোচনা করব না। আমার মনে হয়, কিছু ছন্দ ফিরে পেয়েছি। আমার মনে হয়, আমরা ম্যাচে এগিয়ে ছিলাম। চার উইকেটে ১৯৬ রানে ছিলাম আমরা। দু'জন ব্যাটার ভালো করছিল। ওই জুটি আর ৪০-৫০ রান বেশি করতে পারলে পাকিস্তানকে চাপে রাখা যেত। তাহলে তাদের শেষ সেশনে এক ঘণ্টা ব্যাট করানো যেত। সোহান নিশ্চয়ই ওই শট আবার খেলতে চাইবে না। সে শটটা খেলে যে নিজেকে এবং দলকে চাপে ফেলেছে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

# এখন দলের মনেভাব কেমন?

ডমিঙ্গো :ভালো জায়গায় থেকেও আমরা সেটাকে ধরে রাখতে পারিনি। আমি নিশ্চিত খেলোয়াড়রা হতাশ। টেস্টে উন্নতি দেখছি, তবে কিছু ছোটখাটো ভুল হচ্ছে। ক্যাচ ফেলা, লুজ শট খেলা বা বাজে বোলিং স্পেল হচ্ছে। আমরা লম্বা সময় টিকতে পারছি না। যেটা খুবই হতাশাজনক।

# টি২০ দল পুনর্গঠন হলো। টেস্ট ভালো খেলছে না। ওয়ানডেতে কী হবে, কে জানে। কোচ হিসেবে আপনার পর্যবেক্ষণ কী?

ডমিঙ্গো :বিশ্বকাপের দিকে তাকলে সুপার টুয়েলভে আমরা পাঁচটি ম্যাচ হেরেছি। আমরা শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খুবই ভালো পজিশনে ছিলাম। ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দলের কাছে হেরেছি। এই ম্যাচগুলোতে সেরা তিনজন ক্রিকেটার সাকিব, সাইফউদ্দিন ও সোহানকে পাইনি। যদিও আমরা প্রত্যাশা অনুযায়ী খেলতে পারিনি। অবশ্যই শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জেতা উচিত ছিল। নতুন দল নিয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে যে মানের ক্রিকেট খেলেছে দল, তাতে আমি খুশি।

# আপনার নতুন চুক্তি হয়েছে, গেল দুই বছরে আপনার পারফরম্যান্স এবং বাংলাদেশের ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ কী, সেটার মূল্যায়ন কীভাবে করবেন?

ডমিঙ্গো :আমি দারুণ উপভোগ করেছি। কোনো সন্দেহ নেই, অনেক অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হয়েছে। আমি দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে ছিলাম, তারা অনেক টেস্ট জিতেছে। হতাশ হই যখন দেখি কীভাবে জিতে হয় আমরা জানি না। টেস্ট সংস্কৃতিতে উন্নতি করতে হবে। আমি এটা সব সময় বিশ্বাস করি, টেস্ট দল ভালো হলে সাদা বলের দলও ভালো করবে। হতে পারে বাংলাদেশে লাল বলের চেয়ে সাদা বলের খেলা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। বেশ কিছু প্রতিভাবান তরুণ ছেলে আসছে; কিন্তু তাদের আন্তর্জাতিক ব্যাটসম্যান ও বোলার হয়ে উঠতে অনেক সময় লাগবে। আরও বেশি ঘরোয়া ক্রিকেট বা 'এ' দলের খেলা খেললে ভালো করবে। বর্তমানে ঘরোয়া ক্রিকেটের সঙ্গে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের অনেক পার্থক্য। বিসিবি এদিকটা দেখে ঠিক করে ফেললে খেলায় প্রভাব ফেলবে।