সপ্তমবারের মত ব্যালন ডি'অর জিতেছেন পিএসজি তারকা লিওনেল মেসি। সোমবার দিবাগত রাতে প্যারিসের আলো ঝলমলে থিয়েটার ডু চ্যাটেলেটের অডিটোরিয়ামে মেসির হাতে তুলে দেয়া হয় এই পুরস্কার। এতে ফুটবল ইতিহাসে সর্বোচ্চ ব্যালন ডি'অর অর্জনের রেকর্ডে নিজেকে ছাড়িয়ে যান মেসি। একই সঙ্গে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর ধরা-ছোঁয়ার বাইরে চলে গেছেন আর্জেন্টাইন এই কিংবদন্তি।

ব্যালন ডি'অর পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান শুরুর আগেই বিতর্ক দানা বাঁধে এক ফরাসি সাংবাদিকের দাবি ঘিরে। ফরাসি ফুটবলের এডিটর ইন চিফ পাস্কাল ফেরের দাবি ছিল, রোনালদোর জীবনের একমাত্র লক্ষ্য মেসির থেকে বেশি ব্যালন ডি'অর জেতা। 

ফেরের এ মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে ক্ষেপেছেন পর্তুগীজ তারকা রোনালদো। ফেরের মন্তব্য 'মিথ্যাচার' আখ্যা দিয়ে তাকে একহাত নিলেন সিআরসেভেন। শুধু সাংবাদিক নয়, যেই সূত্র ধরে খবর করা হয়েছিল সেই সূত্রকেও একহাত নিয়েছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো।

ফেরের এ মন্তব্যকে 'মিথ্যাচার' আখ্যা দিয়ে নিজের ইনস্টাগ্রামে রোনালদো বলেন, 'গত সপ্তাহে ফেরে বলেছেন আমি মেসির চেয়ে বেশি ব্যালন ডি'অর জিতে ক্যারিয়ার শেষ করতে চাই। ফেরে মিথ্যা বলেছেন। আমার নাম ব্যবহার করে তিনি ফায়দা লুটছেন। নিজের ও তার সাময়িকীর ব্যবসা বাড়াতে চাচ্ছেন। এটা খুবই অনাকাঙ্ক্ষিত যে ব্যালন ডি'অরের মতো মর্যাদাপূর্ণ একটি পুরস্কারের সঙ্গে জড়িত একজন এ মিথ্যাচার করছেন। আমার মত এক ব্যক্তি যে সারা জীবন ফরাসি ফুটবল এবং ব্যালন ডি'অরকে সম্মান করে এসেছে তার জন্য এটা বিরাট অসম্মানের বিষয়।'


মেসি কাল ব্যালন ডি'অর জেতার আগেই রোনালদো ইনস্টাগ্রামে এ বার্তা দিয়েছিলেন। তবে তিনি নিজে পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে যাননি। ফেরে তার অনুষ্ঠানে না যাওয়া নিয়ে যা বলেছেন, সেটা নিয়েও নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন রোনালদো। তিনি বলেন, 'আজকের অনুষ্ঠানে আমার অনুপস্থিতি নিয়েও এক গল্প ফেঁদেছে। যার কোন ভিত্তি নেই। জীবনের শুরু থেকে আমি আমার ক্যারিয়ারকে স্পোর্টসম্যান স্পিরিটের মধ্যে রেখেই চালনা করেছি। আমি সব সময় যারা বিজয়ী তাদের অভিবাদন, শুভেচ্ছা জানিয়েছি। আমি কখনও কারো বিপক্ষে না বলেই এটা করি। আমি সবসময় নিজেকে, নিজের ক্লাবকে, নিজের দেশকে জেতানোর লক্ষ্য নিয়ে এগিয়েছি। আমার সবথেকে বড় লক্ষ্য বিশ্ব ফুটবলের ইতিহাসে আমার নাম স্বর্নাক্ষরে লিখে যাওয়ার। আমার ফোকাস এই মুহূর্তে ম্যান ইউয়ের পরের ম্যাচে রয়েছে। আমার সতীর্থ, সমর্থকদের নিয়ে এই মৌসুমে এখনও ভালো ফল করব আশা রাখি। বাকিটা 'বাকিই' থাকুক‌।'