ঢাকা শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪

হাথুরুকে বিদায়ের চেষ্টা চলছে!

হাথুরুকে বিদায়ের চেষ্টা চলছে!

ছবি- সংগৃহীত

সেকান্দার আলী

প্রকাশ: ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩ | ০৯:৫৭ | আপডেট: ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩ | ১৭:১৫

বিসিবির পুরোনো অফিস নাভানা টাওয়ারে নিয়ম করে সাক্ষাৎকার নিচ্ছে বিশ্বকাপের পারফরম্যান্স মূল্যায়ন কমিটি। বিশ্বকাপ দল-সংশ্লিষ্টদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হচ্ছে পর্যায়ক্রমে। এনায়েত হোসেন সিরাজের কমিটি বিশ্বকাপে খারাপ পারফরম্যান্সের কারণ অনুসন্ধানের চেয়েও বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য গ্রহণ ইস্যুতে। বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার ঘটনার সত্য-মিথ্যা জানতে চাওয়া হচ্ছে সাক্ষাৎকার দাতাদের কাছে। 

অভিযোগ উঠেছে, যে কোনো মূল্যে হাথুরুসিংহকে দোষী সাব্যস্ত করে চাকরি থেকে বরখাস্তের সুপারিশ করা হতে পারে। তবে এ দাবি ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দেন মূল্যায়ন কমিটির এক সদস্য। তিনি মনে করেন, মূল্যায়ন কমিটির ইমেজ খারাপ করতে এ ধরনের কথা রটানো হচ্ছে।

বিশ্বকাপের আগে থেকেই হাথুরুসিংহের সঙ্গে কোচিং স্টাফের বিরোধ সামনে এসেছে। রাসেল ডমিঙ্গোকে বিদায় করে শ্রীলঙ্কান এ কোচ নিয়োগ দেওয়া মেনে নিতে পারেননি অ্যালান ডোনাল্ডরা। বিশ্বকাপের আগে থেকে প্রধান কোচের বিরুদ্ধে অসহযোগ আন্দোলনে নেমে পড়েন তারা। বিষয়টি জেনেও চুপ ছিলেন বিসিবি ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের কর্মকর্তারা। কারণ হাথুরুসিংহে ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের কর্তারও অপছন্দের পাত্র! তাই বিশ্বকাপের ব্যর্থতা ও নাসুমকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার ইস্যুতে ইন্ধন জোগাচ্ছেন তিনি। কোচকে শায়েস্তা করতে দলের অন্দরমহলের খবর ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের একজন কর্তা সরবরাহ করেছেন বলে অভিযোগ। 

কারণ হাথুরুসিংহে কোনো পক্ষকে পাত্তা না দিয়ে সরাসরি বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। ক্রিকেটারদের ব্যাপারে যে কোনো সিদ্ধান্ত বোর্ড সভাপতির অনুমোদন সাপেক্ষে নিয়ে থাকেন। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগকে উপেক্ষা করেন। এ ছাড়া হাথুরুসিংহেকে তাড়াতে পারলে কোচিং স্টাফ নিয়োগ বাণিজ্যের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে গুঞ্জন রয়েছে খোদ ক্রিকেট বোর্ডের অন্দরমহলে। কোচিং স্টাফের মধ্যে বিভেদ জিইয়ে রাখার পেছনেও এই হীন উদ্দেশ্য কাজ করে থাকতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

হাথুরুসিংহের সঙ্গে কয়েক ক্রিকেটারের সম্পর্ক ভালো যাচ্ছিল না। সেটাকে পুঁজি করে কোচদের মধ্যে দলাদলির সূত্রপাত। জাতীয় দল-সংশ্লিষ্ট বিসিবির একাধিক কর্মকর্তা সমকালকে জানান, পেস বোলিং কোচ ডোনাল্ড, ট্রেনার নিকোলাস লি, পারফরম্যান্স অ্যানালিস্ট শ্রীনিবাস হাথুরুসিংহের বিরুদ্ধে ছিলেন। এ সময় একজন পরিচালকও পরোক্ষে সমর্থন দিয়েছেন ডোনাল্ডদের। 

জাতীয় দল-সংশ্লিষ্ট একজন জানান, বিশ্বকাপের শেষদিকে ফিল্ডিং কোচ শেন ম্যাকডারমটও প্রধান কোচের বিরুদ্ধে অসহযোগ আন্দোলনে যোগ দেন। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের খারাপ খেলার পেছনে এটা বড় কারণ বলে মনে করেন জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের কেউ কেউ। অথচ তারা মূল্যায়ন কমিটির সামনে এ নিয়ে কথা বলতে চান না। 

কেন চান না– এ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে একজন বলেন, ‘পুরো ঘটনাই তো পরিচালকরা জানেন। জালাল ভাই, সুজন ভাই, টিটু ভাই, মাহাবুব ভাই তো দলের সঙ্গে ছিলেন। আপনার কি মনে হয় তারা কিছু দেখেননি বা জানেন না? আমার কাছে তো মনে হয় গ্রুপিংয়ের পেছনে কারও কারও ইন্ধন ছিল।’ 

বিসিবি পরিচালকদের বেশির ভাগ হাথুরুসিংহকে বিদায় করতে একাট্টা হলেও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন বোর্ড সভাপতি পাপন। তিনি ভেটো দিলে প্রধান কোচকে চাকরি থেকে বাদ দেওয়া সম্ভব হবে না।

আরও পড়ুন

×