বায়ার্ন মিউনিখের কাছে নিজেদের মাঠেই হেরেছিল বার্সেলোনা। অন্যদিকে নিজেদের মাঠে বার্সেলোনার কাছে কখনোই হারেনি বায়ার্ন। খেলতে নামার আগে খাতা-কলমে এগিয়েই ছিল বায়ার্ন। তাছাড়া চলতি মৌসুমের শুরু থেকেই ছন্দ হারানো বার্সেলোনা নিজেদের খুঁজে ফিরছিল। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দৌড়ে টিকে থাকতে হলে এই ম্যাচ জেতা ছাড়া কোনো বিকল্পও তাদের সামনে ছিল না। এসব সমীকরণের বোঝা নিয়েই মাঠে নামতে হয় বার্সাকে। এটা অনেকটা অনুমেয়ই ছিল, বায়ার্নকে হারাতে হলে বার্সাকে অসাধারণ কিছু করতে হবে। শেষ পর্যন্ত পারেনি বার্সা। 

বুধবার রাতে আলিয়াঞ্জ এরিনাতে ৩-০ গোলের বড় হার দিয়েই চ্যাম্পিয়ন্স লিগ যাত্রা শেষ করে জাভির বার্সেলোনা। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ২০০০-২০০১ মৌসুমের পর এই প্রথম গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিলো তারা। আর এই জয় দিয়ে লিগের নকআউট পর্বে উঠল জার্মান ক্লাবটি। 

ই গ্রুপে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে সেরা হয়েছে বায়ার্ন মিউনিখ। শেষ ম্যাচ দায়নামো কিয়েভের বিপক্ষে ২-০ গোলে জিতে ৮ পয়েন্ট নিয়ে নক আউট পর্বে জায়গা করে নিয়েছে বেনফিকাও । সমান সংখ্যক ম্যাচে বার্সার পকেটে ৭ পয়েন্ট। আর তাই গ্রুপে তৃতীয় অবস্থানে থেকেই তাদের বিদায় নিতে হলো। 

খেলার শুরুতে বায়ার্ন-বার্সা লড়াই কিছুটা হলেও হয়েছে বলা যায়। শুরুর দিকের বায়ার্নের সাদামাটা পারফরম্যান্সের বিপরীতে বার্সাকে কিছুটা প্রাণবন্তও মনে হয়েছে। বল দখলে রেখে আক্রমণও করে কয়েকটা। কিন্তু ফরোয়ার্ডদের ব্যর্থতার কারণে গোলের দেখা পায়নি দলটি। উল্টো খেলার ৩৪ মিনিটে গোল করে বায়ার্ন মিউনিখকে এগিয়ে নেন থমাস মুলার। লেবানদভস্কির সহায়তায় পোস্টের কাছ থেকে হেডে গোল করেন তিনি।  

৪৩ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে বায়ার্ন। বক্সের বাইরে থেকে জোরালো শটে বল জালে পাঠান লেরয় সানে। বার্সাও একাধিক সুযোগ পেয়েছিল। কিন্তু তা কাজে লাগাতে পারেনি। ২-০ ব্যবধানেই প্রথমার্ধ শেষ হয়। দ্বিতীয়ার্ধের ৬৩ মিনিটে আলফনসো ডেভিডসের সহায়তায় জামাল মুসিয়ালা পোস্টের কাছ থেকে লক্ষ্যভেদ করলে বায়ার্নের স্কোর দাঁড়ায় ৩-০। বলা যায় এই গোল দিয়ে মুসিয়ালা বার্সাকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দৌড় থেকে ছিটকে ফেলেন। শেষ পর্যন্ত ৩-০ ব্যবধানেই ম্যাচ জিতে বায়ার্ন মিউনিখ।

এই ম্যাচে জয় দিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে দ্বিতীয়বারের মতো গ্রুপ পর্বের সব ম্যাচে জয়ের কৃতিত্ব দেখাল বায়ার্ন। ২০১৯-২০ আসরেও এই সাফল্য দেখিয়েছিল তারা। আর এই হারে বার্সেলোনা দুই দশক পর শীর্ষ টুর্নামেন্ট থেকে ইউরোপা লিগে অবনমন হলো।  

একই দিনে জুভেন্টাস জিতেছে। তবে চেলসি ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ড্র করেছে।