ভারতকে হারিয়ে অনূর্ধ্ব-১৯ নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জেতা বাংলাদেশ দলের প্রাণভোমরা এখন রিপা। পুরো টুর্নামেন্টের পাঁচ ম্যাচের খেলেননি দুই ম্যাচ, তবুও যেন তাকে কেউ ছাড়িয়ে যেতে পারেননি। তিন ম্যাচে ৫ গোল করে হয়েছেন টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড়। তিনি কক্সবাজারের উখিয়ার কৃতি ফুটবলার শাহেদা আক্তার রিপা।

ফুটবলার হওয়ার গল্প বেশ মজার কক্সবাজারের উখিয়ার মেয়ে রিপার। তার কথায়, 'যখন প্রথম বা দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ি, তখন সোনাইচরিতে বাড়ির সামনে মাঠে ছেলেদের সঙ্গে ফুটবল খেলতাম। ভাত খেতে বসলে মাঠ দেখা যায়। ওই মাঠে ছোটবেলা থেকে খেলেছি। আমার এক ফুপাত ভাই একদিন বলল, তুই বিকেএসপিতে ভর্তি হবি? আমি বিকেএসপি চিনি না। পরে আমার এক স্যার ও আংকেল আমাকে বিকেএসপিতে ভর্তি করিয়ে দেন।'

ফুটবলার রিপা হতে পারতেন ক্রিকেটারও। ক্রিকেটটাও বেশ ভাল পারেন তিনি, ''আমি ক্রিকেটেও অনেক ভালো খেলি। বিকেএসপিতে ভর্তির সময় আমার ফুফাতো ভাই বলেছিল ফুটবলে ট্রায়াল দিতে। ফুটবলে ট্রায়ালে টিকে যাওয়ার পর থেকেই ফুটবল আমার ধ্যানজ্ঞান। না হলে ক্রিকেটারও হতে পারতাম।'

বিকেএসপির হয়ে প্রথম বিদেশ সফরের অভিজ্ঞতা জানিয়ে রিপা জানালেন, '২০১৬ সালের ডিসেম্বরে বিকেএসপিতে ট্রায়াল দিই। ২০১৭ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি ভর্তি হই। এরপর ওই বছরই অক্টোবর মাসে বিকেএসপির হয়ে সুব্রত কাপে খেলতে যাই ভারতে। ওখানে প্রথম ম্যাচেই খেলতে নেমে আমি ৪০ সেকেন্ডে গোল করি। কোন দলের বিপক্ষে করেছিলাম, মনে নেই। সেবার আমরা চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলাম।'

বর্তমানে দশম শ্রেণিতে পড়া রিপা ২০২২ সালে এসএসসি পরীক্ষা দেবেন। ফুটবলের মাধ্যমে তিনি দেশকে আরও কিছু দিতে চান। খেলার স্টাইলটা অনেকটা তার আর্জেন্টিনার লিওনেল মেসির মতো। এলাকায় তাকে সবাই 'কক্সবাজারের মেসি' বলে ডাকে। তবে রিপার প্রিয় খেলোয়াড় ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। উদযাপনটা অবশ্য সিআর সেভেনের মতো করেন না। নিজের মতো উদযাপন করা রিপা নিজ পরিচয়ে আরও বড় হতে চান। 

রিপার নতুন লক্ষ্য মেয়েদের সিনিয়র দলে জায়গা করে নেওয়া। এরপর দেশকে এনে দিতে চান অধরা সিনিয়র চাপ। আর মনের ভেতর থাকা বড় স্বপ্নটা প্রকাশ করতেও দ্বিধা করেননি রিপা, 'আমার স্বপ্ন হচ্ছে বাংলাদেশকে একদিন বিশ্বকাপে নিয়ে যাব।'