মালয়েশিয়ায় আইসিসি কমনওয়েলথ গেমস-২০২২ এর নারী বাছাইপর্ব খেলতে গত শনিবার দেশ ছেড়েছে বাংলাদেশ নারী দল। তবে সেই দলে জায়গা মেলেনি জাহানারা আলমের। তাকে রাখা হয়েছে স্ট্যান্ডবাই হিসেবে। কিন্তু নারী দল মালয়েশিয়া পৌঁছানোর আগেই ক্ষুব্ধ জাহানারা বিসিবিকে একটি চিঠি দিয়েছেন।

চিঠিতে বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচকের বিরুদ্ধে স্বজনপোষণ ও অব্যবস্থার অভিযোগ তুলেন সাবেক এই অধিনায়ক। জাহানারার চিঠি দেওয়ার কথা স্বীকার করে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, 'আমরা জাহানারার কাছ থেকে চিঠি পেয়েছি। তদন্ত করে যথাযথ পদক্ষেপ করা হবে। কারণ যখন জাহানারার মাপের কোনও ক্রিকেটার অভিযোগ করছে তখন দেখতে হবে তার মধ্যে কতটা সত্যি রয়েছে।'

জিম্বাবুয়ে থেকে ফিরে বিসিবিকে যে চিঠি দিয়েছেন জাহানারা, সেখানে নির্বাচক মঞ্জুরুল ইসলাম, কোচ একে এম মাহামুদুল ইমনের বিপক্ষে পক্ষপাতের অভিযোগ এনেছেন। একই সঙ্গে তুলে ধরেছেন ড্রেসিংরুমের অনেক ঘটনা।

তিনি জানান, তাকে ক্রিকেটীয় কারণে নয়, বরং অন্য কারণে দল থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। সেই ঘটনার তদন্তের আবেদন করেছেন তিনি।

২০২২ নারী ওয়ানডে বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব খেলে জিম্বাবুয়ে গিয়েছিল নারী দল। সেখানে বেশ উজ্জ্বল ছিল জাহানারার পারফরম্যান্স। ছয় ম্যাচ খেলে ৯টি উইকেট নিয়েছেন এই ডানহাতি পেসার। এর মধ্যে ২ ম্যাচে নিয়েছিলেন ৩টি করে উইকেট।

আইসিসি কমনওয়েলথ গেমস-২০২২ এর নারী বাছাইপর্ব জন্য ঘোষিত স্কোয়ার্ড-

নিগার সুলতানা জৌতি (অধিনায়ক), রুমানা আহমেদ, সালমা খাতুন, ফারজানা হক, শামীমা সুলতানা, ফাহিমা খাতুন, রিতু মনি, মুর্শিদা খাতুন, নাহিদা আক্তার, শারমিন আক্তার, লতা মণ্ডল, সোবহানা মোস্তারি, ফারিহা ইসলাম, সানজিদা আক্তার ও সুরাইয়া আজমিম।

স্ট্যান্ডবাই: জাহানারা আলম, নুজহাত তাসনিয়া ও খাদিজা-তুল-কুবরা।