বিপিএলের ঢাকার প্রথম পর্ব শেষ, এখন অপেক্ষা চট্টগ্রাম পর্বের। অষ্টম আসরে এখন চলছে দুইদিনের বিরতি। আগামী ২৮ জানুয়ারি শুক্রবার দুপুর দেড়টায় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ও খুলনা টাইগার্সের ম্যাচ দিয়ে পুনরায় মাঠে গড়াবে আসর। খেলাটি অনুষ্ঠিত হবে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে।

এরই মধ্যে বন্দরনগরীতে পৌঁছেছে কয়েকটি দল। ঢাকায় ৮টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঢাকা আসরের দিনের প্রথম ম্যাচগুলো হয়েছে লো স্কোরিং। দ্বিতীয় ম্যাচে হয়েছে রানের বন্যা। করোনার কারণে ঢাকার মতো চট্টগ্রামেও থাকছে না দর্শক উপস্থিতি। এদিকে ঢাকার প্রথম পর্ব শেষে শতভাগ জয় নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। চার ম্যাচে তিন হারে টেবিলের তলানীতে মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকা।

চট্টগ্রাম পর্বেও অনুষ্ঠিত হবে ৮টি ম্যাচ। তারপর আবার ঢাকায় ফিরে আসবে বিপিএল। দ্বিতীয়বারে ঢাকায় ৪টি ম্যাচ শেষে টুর্নামেন্ট ফিরে যাবে আবার সিলেটে। সেখানে ৬টি ম্যাচ শেষে তৃতীয়বারের মতো ঢাকায় ফিরে আসবে টুর্নামেন্ট। আর এখানেই ১৮ ফেব্রুয়ারি ফাইনালের মধ্যদিয়ে শেষ হবে অষ্টম আসরের। 

ঢাকার প্রথম পর্ব শেষে রান সংগ্রাহকের শীর্ষে অবস্থান করছেন মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। শীর্ষ দশে ৬ জন দেশি ও শীর্ষ পাঁচে রয়েছে তিনজন। মাহমুদউল্লাহ চার ম্যাচ খেলে ১২৬.৫৩ স্ট্রাইকরেটে করেছেন ১২৪ রান। ম্যাচে তার সর্বোচ্চ ৪৭ রান। চার মেরেছেন ৮টি ও ছয়ের মার ৪টি।

দ্বিতীয় স্থানে থাকা চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিদেশি বেনি হাওয়েল। ৩ ম্যাচ খেলে ১৮৯.৮৩ স্ট্রাইকরেটে তার সংগ্রহ ১১২ রান। সর্বোচ্চ রান ৪১। ৮টি চারের সঙ্গে মেরেছেন ৭টি ছয়ও।

তৃতীয় স্থানে মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার তামিম ইকবাল। ১১১.৭০ স্ট্রাইকরেটে ৪ ম্যাচ থেকে সংগ্রহ করেছেন ১০৫ রান। রয়েছে ২টি অর্ধশত। সর্বোচ্চ রান ৫২। ১৩টি চারের সঙ্গে রয়েছে ২টি ছয়।

চতুর্থ স্থানে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিদেশি উইল জ্যাকস। ৩ ম্যাচে ১৪৫.০৯ স্ট্রাইকরেটে সংগ্রহ করেছেন ৭৪ রান। সর্বোচ্চ করেছেন ৪১ রানের ইনিংস। রয়েছে ৭টি চার ও ৫টি ছয়ের মার।

পঞ্চম স্থানে থাকা মিনিস্টার গ্রুপ ঢাকার শুভাগত হোম চার ম্যাচ থেকে ১২২.০৩ স্ট্রাইকরেটে করেছেন ৭২ রান। ৬টি চার ও ২টি ছয়ে সর্বোচ্চ রান ২৯।

এছাড়াও শীর্ষ দশে রয়েছেন সাব্বির রহমান, রনি তালুকদার, মেহেদি হাসান মিরাজ, আন্দ্রে ফ্লেচার ও মোহাম্মদ শাহজাদ।