অস্ট্রেলিয়ান হল অব ফেমে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের সাবেক ওপেনার ও বর্তমান কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার। একই সম্মানে ভূষিত হয়েছেন অস্ট্রেলিয়া নারী দলের সাবেক পেসার ও অধিনায়ক রাইলি থম্পসনও।

১৯৯৩ সালে টেস্টে অভিষিক্ত ল্যাঙ্গার ১০৫ ম্যাচে ৪৫.২৭ গড়ে ৭,৬৯৬ রান করেছেন। তার মধ্যে রয়েছে ২৩ সেঞ্চুরি ও ৩০ ফিফটি। ম্যাথু হেইডেনের সঙ্গে সাদা পোশাকের ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে সফল উদ্বোধনী জুটি গড়ে অনেক সাফল্য এনেছেন। ল্যাঙ্গার-হেইডেন জুটি ওপেনিংয়ে ১২২ ইনিংসে ৫১.৫৩ গড়ে ক্যাঙ্গারুদের হয়ে করেছিলেন ৬,০৮১ রান। শতরানের জুটি ছিল ১৪ বার।

২০১৮ সালের মে মাসে অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ক্রিকেট দলের কোচ হন ল্যাঙ্গার। ওই সময় দক্ষিণ আফ্রিকায় বল টেম্পারিংয়ের অভিযোগে টাল মাতাল অবস্থা ছিল অজিদের। ড্যারেন লেহম্যানের উত্তরসূরি হিসেবে কোচিংয়ের দায়িত্ব নেন তিনি।

ল্যাঙ্গারের কোচিংয়ে অস্ট্রেলিয়া গত বছর সংযুক্ত আরব আমিরাতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হয়। সদ্য সমাপ্ত অ্যাশেজেও ইংল্যান্ডকে ৪-০ ব্যবধানে হারায় স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার হল অব ফেমে স্থান পাওয়া নারী ক্রিকেটের তারকা রেয়লি থম্পসন চার দফায় অস্ট্রেলিয়ার নেতৃত্ব সামলেছেন। ডানহাতি মিডিয়াম পেসার থম্পসন ১৯৭২ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখেন। ১৩ বছরের ক্যারিয়ারে খেলেছেন ১৬ টেস্টে, ১৮.২৪ গড়ে নিয়েছেন ৫৭ উইকেট। ২৩ ওয়ানডেতে ১৮.৬৬ গড়ে তুলেছেন ২৪ উইকেট।

ছেলে ও মেয়েদের বিভাগ মিলিয়ে টেস্ট ক্রিকেটে অনন্য এক রেকর্ড আজও ধরে রেখেছেন থম্পসন। সবচেয়ে বেশি বয়সে লাল বলের ক্রিকেটে নিয়েছিলেন ৫ উইকেট। অর্জনের সময় বয়স ছিল ৩৯ বছর ১৭৫ দিন।