চলতি বিপিএলে সবচেয়ে তরুণ অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজ। তরুণ হলেও তার দলের সাফল্যে বেশ ভারী। তিন ম্যাচে দুই জয়ে সমান চার পয়েন্ট চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের অবস্থান দ্বিতীয়। নিজের দলের এই সাফল্য খুশি মিরাজ। জানালেন, দলের জয়টাই মিরাজের কাছে মূখ্য, ব্যক্তিগত পারফর্ম্যান্স নয়।

মিরাজ বলেন, 'আমি পারফর্ম করলাম টিম উইন করলো না, এটা আসলে আমার ক্যাপ্টেন হিসেবে ভালো লাগবে না। আমি যদি এভারেজ পারফর্ম করি টিম রেজাল্ট করে তাহলে আমারও খুব ভালো লাগবে। দেখেন প্রথম ম্যাচটা আমরা হেরে গিয়েছি, আমি ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছিলাম। বাট আমার কিন্তু অতটা ভালো লাগেনি, হয়তো ম্যাচটা জিততে পারলে ভালো লাগতো। যদি আমি ম্যান অব দ্য ম্যাচ নাও হতাম কিন্তু দল জিততো তাহলে ক্যাপ্টেন হিসেবে আমার কাছে ভালো লাগতো। এটা নট অনলি মি, এটা প্রত্যেক ক্যাপ্টেনই এভাবে চিন্তা করে যে, টিমের পারফরম্যান্স যদি ভালো হয়, ম্যাচ জিততে পারে তাহলে ক্যাপ্টেনের খুব ভালো লাগে। এজ এ ক্যাপ্টেন হিসেবে আমার কাছে তিনটা ডিপার্টমেন্টই ভালো,বাট ম্যাচ জিতলে আরও ভালো লাগে।'

উইকেট নিয়ে সমালোচনা থাকলেও মিরাজের মতে বিপিএলে ভালো উইকেটই আছে। মিরাজের ভাষ্যে, 'যত ভালো উইকেটে খেলবে তত ব্যাটসম্যানরা রান করে কনফিডেন্ট পাবে এবং বোলাররাও অনেক কিছু শিখতে পারবো। সো আমি মনে করি যে ভালো উইকেটে খেলাটাই ইম্পর্ট্যান্ট, ইন্ড অব দ্য ডে সবাই ভালো ক্রিকেট খেললে নিজের কনফিডেন্টটাও ভালো থাকে। অবশ্য এখানে ভালো উইকেট আছে, সবাই ওভাবে মেন্টালি প্রিপারেশন নিবে। কীভাবে সার্ভাইভ করা যায়, কীভাবে রান করা যায়, কীভাবে উইকেট নেওয়া যায়।'

মিরাজের কাছে গণমাধ্যমের প্রশ্ন ছিল সিনিয়র অধিনায়কদের ছাপিয়ে তার সাফল্যের রহস্য কী। এইজন্য দলের খেলোয়াড়দেরকেই কৃতিত্ব দিয়েছেন তিনি। মিরাজ বলেন, 'ক্রিকেট খেলায় দিন শেষে যারা ভালো খেলবে, তারাই জিতবে। এখনো খেলার অনেক কিছুই বাকি আছে। আমাদের দলের সবাই ভালো ক্রিকেট খেলছে। যে বড় দলগুলো আছে, তারা যে খারাপ এমন কিছু না। অবশ্যই তারা ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য চেষ্টা করবে। যেহেতু চট্টগ্রামের ম্যানেজমেন্ট আমার ওপর বিশ্বাস রেখেছে, আমি চেষ্টা করব যেন অধিনায়ক হিসেবে ভালো কিছু করতে পারি এবং ম্যাচ জিততে পারি।'