চলছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের অষ্টম আসর। কিন্তু খেলোয়াড়রা উদযাপনে ভিন্নতা আনতে গিয়ে বিপিএলকে বানিয়ে ফেলেছে 'পুস্পা' সিনেমার অডিশন পর্ব। নাগিন ড্যান্সের জন্য ক্রিকেটে বিখ্যাত অপু এবারের বিপিএলে নিজের উদযাপনে ভিন্নতা নিয়ে আসেন ভারতের তেলেগু সিনেমার অভিনেতা আল্লু অর্জুনের পুস্পা চরিত্রটি। এরপর একে একে ছড়িয়ে পড়েছে বিপিএলের সব দলে। দেখে মনে হচ্ছে, কে কার থেকে ভালো 'পুষ্পা' সেলিব্রেশন করতে পারে তার প্রতিযোগিতা চলছে।

সম্প্রতি বক্স অফিস কাঁপিয়ে দিয়েছে তেলেগু চলচ্চিত্র 'পুষ্পা'। ছবিটিতে প্রধান ভূমিকায় আছেন দক্ষিণী সুপারস্টার আল্লু অর্জুন। পুরো মুভিতে অর্জুন হাত সামনে এনে সাপের ফণার মতো করে ট্রেডমার্ক এই ভঙ্গিটি ব্যবহার করেছেন। বিপিএলের অষ্টম আসরে এমন ভঙ্গিতে উইকেট উদযাপন শুরু করেছিলেন সিলেট সানরাইজার্সে খেলা নাজমুল ইসলাম অপু।

এরপর ফরচুন বরিশালের বিদেশি রিক্রুট ডোয়াইন ব্রাভোকে দেখা গেছে 'পুস্পা' ভঙ্গিতে উদযাপন করতে। বাদ যাননি একই দলের সাকিব আল হাসানও। সতীর্থের দেখাদেখি নূরুল হাসানকে আউট করার পর একই কাজ করলেন বাঁহাতি স্পিনার তানভীর ইসলামও। এরপর একে একে যোগ দিলেন শেখ মেহেদি হাসান, শরিফুল ইসলামরা। অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে যেন পুষ্পা সিনেমার ক্রিকেটীয় বিজ্ঞাপনে নেমেছে পুরো বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ।

শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া চট্টগ্রাম পর্বের প্রথম ম্যাচেই এ তালিকায় যোগ দেন আরও দুজন। চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে ম্যাচের প্রথম ইনিংসে প্রতিপক্ষ অধিনায়ক মিরাজকে আউট করে আল্লু অর্জুনের পুস্পার মতো 'সিগারেট' খাওয়ার ভঙ্গীতে সারেন উদযাপন। এরপর খুলনার ওপেনার সৌম্য সরকারকে ফিরিয়ে পেসার শরিফুল ইসলামের সঙ্গে গোটা দল মেতে ওঠেন পুস্পা সিনেমার নাচের মতো করে উদযাপন।

বিপিএলে খেলোয়াড়দের এমন পুষ্পা-নাচন দেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হাসিঠাট্টা করছেন সমর্থকেরা। অনেক সমর্থকেরাই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের নাম দিয়েছেন 'বাংলাদেশ পুষ্পা লিগ (বিপিএল)

পুষ্পা উদযাপনের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে বিপিএল ও পুষ্পাকে ঘিরে নানান আলোচনা-সমালোচনা। নাজমুল হোসেন নামে এক সমর্থক লিখেছেন, 'বিপিএল যেন পুরো সার্কাস লিগ। এই টুর্নামেন্টের নাম পরিবর্তন করে 'বাংলাদেশ পুষ্পা লিগ' করা হোক।'

মৃদুল সাহা নামে এক সমর্থক ফেসবুকে লিখেছেন, 'বিপিএল নাম না রেখে ডিপিএল (ড্যান্সিং প্রিমিয়ার লিগ) নাম রাখার দরকার ছিল।'

মোহাম্মদ আলাউদ্দিন লিখেছেন, 'এবারের বিপিএল অন্য কোনো কিছুতে সাঁড়া জাগাতে না পারলেও উদযাপনে ভিন্নতা এনে সাঁড়া জাগাচ্ছে।'

ফারজানা কবির নামে এক সমর্থক লিখেছেন, পুষ্পা নামে কোনো মুভি রিলিজ হয়ছে বলে জানতাম না আমি। বিপিএল টিমগুলা কে ধন্যবাদ পুষ্পা মুভির প্রচারণার দায়িত্ব নেওয়ার জন্য।'

শিমুল রাকশিত বিপিএল নিয়ে লিখেছেন, 'পিসিবি কি বিসিবির চাইতে ধনী? পিএসএল আর বিপিএলের মান আকার আর পাতাল'

সম্রাট বড়ুয়া লিখেছেন, 'পুষ্পা লিগ গোয়িং ওয়েল।'

কাজী রিফাতের চাওয়া, 'এই সমস্ত পাগলামির মধ্যে দিয়ে বিপিএলের উন্নতি হোক, তার পরেও হোক।'

মোহাম্মদ আলী লিখেছেন, 'বিপিএল চলতাছে নাকি পুষ্পা মুভি এর ট্রেইলার চলতাছে কিছুই বুঝতাছিনা।'

এমনিতেই বিপিএল নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার অভাব নেই। দেশের ক্রিকেট বোর্ড মনে করে, ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টগুলোর মধ্যে ভারতের আইপিএলের পরই বিপিএলের অবস্থান। কিন্তু পরে শুরু করেও বিপিএলকে ছাপিয়ে আইপিএলের সাথে টক্কর দিচ্ছে পিএসএল। ঘরোয়া ক্রিকেটের সবচেয়ে জমজমাট আসর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) মানেই বিতর্ক আর অসংলগ্নতার ছড়াছড়ি। প্রতি আসরেই বিপিএল দেখা মেলে হ-য-ব-র-ল অবস্থা। ৭টি আসর পার করে এসেও বিপিএলে যেন খুঁজ পায়নি শক্ত ভিত। প্রতিবারই জোড়াতালি, আক্ষেপ আর অতৃপ্তি নিয়ে হয় বিপিএল।