ফলোঅনের ঝুঁকি মাথায় নিয়ে দিন শুরু করেছিলেন মুশফিকুর রহিম ও ইয়াসির রাব্বি। দৃঢ়তা ও ধৈর্য্যের পরীক্ষা দিয়ে দলকে টানছিলেনও তারা। কিন্তু ফিফটির আগে ইয়াসির ও ফিফটির পরে ফিরে গেছেন মুশফিকুর রহিম। তৃতীয় দিন প্রথম সেশন শেষে ফলেঅনের শঙ্কায় বাংলাদেশ। 

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ৭০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২১০ রান করেছে। ক্রিজে আছেন মেহেদি মিরাজ ও তাইজুল ইসলাম। এর আগে ইয়াসির ৮৭ বলে সাতটি চারে ৪৬ রানে ফিরেছেন। মুশফিক আউট হয়েছেন ৫১ রান করে। বাংলাদেশ এখনও ২৪৩ রানে পিছিয়ে। ফলোঅন এড়াতে দরকার ৪৩ রান।

প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকা ৪৫৩ রানে অলআউট হয়। জবাবে বাংলাদেশ প্রথম ৫ উইকেটে ১৩৯ রান তুলে দ্বিতীয় দিন শেষ করে। তামিম ইকবাল সেট হয়ে ৪৭ রান করে এবং নাজমুল শান্ত ৩৩ রান করে ফিরতেই ঝুরঝুর করে ভেঙে পড়ে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন আপ।  

দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্সও জানান, বাংলাদেশের জন্য তৃতীয় দিন কঠিন হতে যাচ্ছে। সময় যত যাচ্ছে, উইকেট হয়ে উঠছে স্পিন সহায়ক। আগের ম্যাচে পারফর্মার কেশব মহারাজ, সাইমন হার্মাররা আবারও জ্বলে উঠলে রক্ষা নেই টাইগার ব্যাটারদের।

এর আগে প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে সর্বোচ্চ ৮৪ রানের ইনিংস খেলেন কেশব মহারাজ। অধিনায়ক ডিন এলগার খেলেন দ্বিতীয় সেরা ৭০ রানের ইনিংস। তিনে নামা কেগান পিটারসন ৬৪ ও চারে নামা টেম্বা বাভুমা খেলেন ৬৭ রানের ইনিংস। রান পেয়েছেন ওপনার সারেল আরউই (২৪), ছয়ে নামা কাইল ভেরাইনে (২২), সাতে নামা ওয়ান মুলদার (৩৩) ও নয়ে নামা সিমন হারমার (২৯)। প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের হয়ে ৬ উইকেট নিয়েছেন তাইজুল ইসলাম।