লিগে পিএসজির সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী মার্সেই। ফ্রান্স লিগ ওয়ানে একসময় দাপট দেখানো দলটির ইতিহাস সমৃদ্ধ। অর্থের ঝনঝনানিতে তাদের প্রভাব কেড়ে নেওয়ায় পিএসজি’র সঙ্গে দা-কুমড়ো সম্পর্ক ক্লাবটির। রোববার রাতে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে কঠিন ম্যাচ হয়েছে প্যারিসিয়ানদের। তবে নেইমার-এমবাপ্পের গোলে ২-১ গোলে জিতেছে পিএসজি।

ওই জয়ে লিগ শিরোপার একদম কাছে চলে গেছে মাউরিসিও পচেত্তিনোর দল। লিগে তাদের আরও ছয় ম্যাচ বাকি। ওই ছয় ম্যাচের একটিতে জিতলেই এবং শেষ পাঁচ ম্যাচে কম গোল খেলেই লিগ শিরোপা ঘরে উঠবে পিএসজির। শিরোপা হতে লিওনেল মেসি, নেইমার জুনিয়র ও কিলিয়ান এমবাপ্পের পিএসজি এক সিঁড়ি দূরত্বে কথাটা বলাই যায়।

ঘরের মাঠ পার্ক দেজ প্রিন্সেসে ম্যাচের ১২ মিনিটে লিড নেয় পিএসজি। মার্কো ভেরাত্তির লম্বা করে বাড়ানো বাতাসের বলে দারুণ এক স্লো ভলি করেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড নেইমার। গোলরক্ষককে বোকা বানিয়ে বল জড়িয়ে দেন জালে। ম্যাচের ৩১ মিনিটে ওই গোল শোধ করে মার্সেই। কিন্তু প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে পেনাল্টি থেকে গোল করে এমবাপ্পে আবার দলকে লিড এনে দেন।

নেইমারর গোলের পর মেসি-এমবাপ্পের সঙ্গে উদযাপন। ছবি: এএফপি

দ্বিতীয়ার্ধে মার্সেই চেষ্টা করেও সমতায় ফিরতে পারেনি। তবে নেইমার-মেসিদের আর গোলও করতে দেয়নি। এই জয়ে পিএসজি ৩২ ম্যাচে ৭৪ পয়েন্ট তুলেছে। সমান ম্যাচে ৫৯ পয়েন্ট নিয়ে ১৫ পয়েন্টে পিছিয়ে মার্সেই। গোল ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় প্যারিসিয়ানরা এক ম্যাচ জিতলেই শিরোপা হাতে চলে আসবে।

লিগ ওয়ানে রাতের অন্য এক ম্যাচে বোর্দোর বিপক্ষে ৬-১ গোলের বিশাল জয় পেয়েছে অলিম্পিয়াকোস লিঁও। সেরা চারের বাইরে থাকা দলটির হয়ে জোড়া গোল করেছেন মুসা ডেম্বলে ও টোকো ইকাম্বি। এছাড়া লুকাস পাকুয়েতা ও রোমান ফ্যাব্রি একটি করে গোল করেছেন। পাঁচ গোল খাওয়ার পরে একটি গোল শোধ করে বোর্দো।