সবসময় নিজেকে উজাড় করে দেওয়ার প্রত্যয় নিয়ে দেশের জার্সিতে মাঠে নামেন নেইমার। সেটা ছোট-বড় সব টুর্নামেন্টেই। লক্ষ্য থাকে শেষ অবধি যাওয়ার, শেষ হাসি হাসার। তাতে কিছুটা হলেও সফলতার দেখা পেয়েছেন তিনি। তবে অমূল্য রতন বিশ্বকাপ ট্রফিটা এখনও ধরা দেয়নি।

এরই মধ্যে দুটি বিশ্বকাপ খেলে ফেলেছেন। একবার চোটের কারণে ভেস্তে যায় তার আশা। আরেকবার চোট কাটিয়ে বিশ্ব আসরে গেলেও টানতে পারেননি দলকে। পাননি আরাধ্যের ট্রফির দেখা। এবার নতুন উদ্যমে হলুদ জার্সিতে কাতার জয় করতে চান। এমনকি জীবন দিয়ে হলেও বিশ্বকাপ ট্রফি চান নেইমার।

সম্প্রতি ব্রাজিলের ক্লাব ফ্লামেঙ্গোর খেলোয়াড় দিয়েগো রিবাসের সঙ্গে লাইভ আলোচনায় এমনটাই জানিয়েছেন তিনি, 'আমি চেয়েছিলাম পিএসজির হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিততে। দুর্ভাগ্যক্রমে সেটা হয়নি। এখন লক্ষ্য ২০২২ বিশ্বকাপ জেতা। আমি নিজেকে মানসিক ও শারীরিকভাবে প্রস্তুত করেছি।

আমি এর জন্য (বিশ্বকাপ) আমার জীবন দিয়ে দেব। দু’বার বিশ্বকাপ খেলেছি, সেজন্য জানি কীভাবে কী করতে হবে। আসলে আপনি যদি প্রস্তুত না থাকেন তাহলে সুযোগ অন্যদিকে চলে যাবে। তাই আমি এটাকে হাতছাড়া করতে পারি না।’

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়াল মাদ্রিদের কাছে হেরে বাদ পড়ার পর ঘরের মাঠেও দুয়ো শুনতে হয় নেইমারকে। যেটা তাকে ভীষণ কষ্ট দিয়েছিল। যেমন ইঙ্গিত দিয়েছেন ব্রাজিলিয়ান তারকা, ‘কেউই ধুয়ো শুনতে চায় না, এমনকি আপনি যদি ঘরের মাঠেও খেলেন। আসলে এটা মোটেও ভালো দেখায় না। আমার এই জায়গায় আসার পেছনে যাদের অবদান তাদের আমি স্মরণ করতে চাই এবং তাদের জন্য খেলতে চাই।

পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে বিষোদ্গারও করেছেন নেইমার, ‘আমার মনে হয় সোশ্যাল মিডিয়া বেশি কষ্ট দেয়, তারপর সাহায্য করে। কারণ আপনি যদি ভালো করেন তাহলে সবকিছু ভালো আসবে, সংবাদ ভালো আসবে এবং মুখেও হাসি থাকবে। কিন্তু যখন খারাপ খেলবেন তখন সেটা মোটেও ভালো কিছু হওয়ার কথা না। কেউই তখন ওই দুঃসময় পার করতে সাহায্য করতে আসবে না। আজকালকের দিনে সোশ্যাল মিডিয়া খুবই ভয়ংকর।’