দলবদলে কিলিয়ান এমবাপ্পে-নাটক বোধহয় শেষ হওয়ার পথে। বড়জোর মাসখানেক এ নিয়ে আলোচনা থাকবে। এরপর এমবাপ্পে হয়ে যাবেন রিয়াল মাদ্রিদের একজন। সর্বশেষ গত সোমবার যে ছবিকে ঘিরে শুরু হয় জল্পনা-কল্পনা। সেই ছবিতেই মনে হয় ইতি হচ্ছে এই চ্যাপ্টারের। 

মুন্ডো দেপোর্তিভো, কাডেনা কোপসহ বিভিন্ন স্প্যানিশ প্রচারমাধ্যম এমনটাই দাবি করছে। আর চূড়ান্ত কথাবার্তা সারতেই এক দিনের ছুটি নিয়ে মাদ্রিদে যান কিলিয়ান। এখন মাদ্রিদও তাকে বরণ করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। তবে ২৮ মে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল হওয়ায় এখনই ঘটা করে কোনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেবে না রিয়াল।

প্যারিসে লিভারপুলের বিপক্ষে ফাইনাল ম্যাচটা খেলার পরই এমবাপ্পেকে ঘরে তুলবে লস ব্লাঙ্কোসরা। গতকাল স্প্যানিশ ট্যাবলয়েড মুন্ডো দেপোর্তিভো জানিয়েছে, মাদ্রিদে আসার মূল কারণই ছিল চুক্তির বিভিন্ন ক্লজ নিয়ে আলোচনা করা। 

এমবাপ্পের এই সফরে তাকে সহযোগিতা করেছেন তারই ভাই। পাশাপাশি ছিলেন আইন বিশেষজ্ঞ। ২৪ ঘণ্টা পর মঙ্গলবার প্যারিসের দিকে রওনা হয় তার প্রাইভেট জেট। তেমন একটা ছবি আবার ইনস্টাগ্রামে পোস্টও করেন এমবাপ্পে। আর দেপোর্তিভো তাদের বিশ্বস্ত সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, রিয়াল এরই মধ্যে এমবাপ্পে বরণের দিনক্ষণ চূড়ান্ত করে ফেলেছে। 

যেহেতু ৩০ জুন শেষ হচ্ছে পিএসজির সঙ্গে এমবাপ্পের চুক্তির মেয়াদ। তাই এক ঢিলে দুই পাখি মারতেই চাইবে রিয়াল। যাতে চুক্তি নিয়ে পিএসজির সঙ্গে বড় কোনো সমস্যায় পড়তে না হয়। সেজন্য এই জুনের শেষ দিকেই তারা এমবাপ্পেকে নিজেদের খেলোয়াড় হিসেবে ঘোষণা দিতে চায়। সেটা কোনো মতেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালের আগে নয়। 

সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে নিজ দলের দর্শকদের সামনে পরিচয়পর্বটা হবে জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে। অবশ্য স্প্যানিশ রেডিও কাডেনা কোপ বলছে, জুনের পরই আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিতে চায় রিয়াল। অর্থাৎ এমবাপ্পের সঙ্গে পিএসজির চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর পরই তারা আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেবে।