করোনাভাইরাস মহামারির কারণে গত মৌসুমে বেশ ভুগেছে স্পেনের শীর্ষস্থানীয় লিগ। আর্থিক লোকসানের অঙ্কটাও বেশ বড়। ২০২০-২১ মৌসুমে লা লিগার ক্লাবগুলোর মোট আয় ছিল ৩৮১ কোটি ইউরো। যা কিনা ২০১৯-২০ মৌসুমের চেয়ে ২৪.১ শতাংশ কম। অবশ্য ২০১৯-২০ মৌসুম চলাকালীনই আঘাত হেনেছিল করোনাভাইরাস। তবে সেটা মৌসুমের প্রায় শেষ দিক হওয়ায় এর প্রভাব খুব একটা টের পায়নি ক্লাবগুলো।

কাতালান অঞ্চলের সংবাদমাধ্যম কাদেনা কোপ জানিয়েছে, ২০২০-২১ মৌসুমে ৯০ কোটি ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৮ হাজার ২৪৪ কোটি টাকা) লোকসান গুনেছে লা লিগা। ২০১২ সালের পর প্রথমবারের মতো এমন আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হলো লা লিগা। এর মধ্যে প্রায় ৬০ শতাংশ লোকসানের দায় বার্সেলোনার। 

২০২০-২১ মৌসুমে আয় কমার মূল কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে টিকিট বিক্রি শূন্যের কোটায় নামা। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে পুরো ২০২০-২১ মৌসুমই দর্শকশূন্যে মাঠে খেলতে হয়েছে। এছাড়াও টিভি স্বত্ব এবং বাণিজ্যিক স্বত্ব থেকেও কমেছে দলগুলোর আয়।

লা লিগার দেওয়া এই আর্থিক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ২০২০-২১ মৌসুমে লা লিগার ক্লাবগুলোর আর্থিক দেনার পরিমাণও বেড়েছে। এই সময়ে দলগুলোর মোট দেনার পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯ বিলিয়ন ইউরো। আর এই দেনার ৪০ শতাংশই কাতালান ক্লাব বার্সেলোনার।

২০২০-২১ মৌসুমে বার্সেলোনার আয় কমেছে প্রায় ৪৮১ মিলিয়ন ইউরো। এটাই মূলত প্রভাব ফেলেছে লা লিগার ৮৯২ মিলিয়ন আয় কমতে। তবে এই কারণে লা লিগা নিজেদের আর্থিক প্রতিবেদনে সরাসরি বার্সেলোনাকে দায়ী করেনি।

লা লিগা জানিয়েছে, ২০২১-২২ মৌসুমেই ঘুরে দাঁড়াবে তারা। আর ২০২৩-২৪ মৌসুমের মধ্যে ক্ষতি পুরোটাই পুষিয়ে নিতে পারবে ক্লাবগুলো।