করোনার কারণে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সাকিব আল হাসানের প্রথম টেস্টে খেলা অনিশ্চিত ছিল। করোনমুক্ত সাকিব ম্যাচের আগের দিন দলে যোগ দেন। আধ ঘণ্টা ব্যাটিং অনুশীলন করেন এবং ম্যাচ খেললেন। ১৯ ওভার বোলিং করে দলের সেরা ইকোনমির (১.৪০) বোলার তিনি। 

টাইগার স্পিন বোলিং কোচ রঙ্গনা হেরাথের মতে, প্রথম বল থেকে ওভাবে লেন্থ ধরে বোলিং করে যাওয়ার সামর্থ্য সকলের থাকে না। ওটা সাকিব বলেই সম্ভব হয়েছে। বাঁ-হাতি স্পিনার পেরেছেন কারণ তার আত্মবিশ্বাস ওই পর্যায়ের। 

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে দলের প্রতিনিধি হয়ে হেরাথ বলেন, ‘আপনারা হয়তো খেলায় করেছেন, প্রথম বল থেকেই সে মান ধরে রেখে বোলিং করেছে। তার মতো সামর্থ্যের ক্রিকেটার খুব কম দেখা যায়। বোলিং নিয়ে সে খুব আত্মবিশ্বাসী ছিল। সেজন্য সফল হয়েছে।’ 

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশ নিয়মিত পাঁচ বোলার নিয়ে খেলছে। সাকিবের সঙ্গে স্পিন আক্রমণে আছেন বাঁ-হাতি তাইজুল এবং ডানহাতি স্পিনার নাঈম। পেস আক্রমণে আছেন শরিফুল এবং খালেদ। স্পিন বোলিং কোচ জানান, শ্রীলঙ্কার ২০ উইকেট নেওয়ার লক্ষ্য নিয়ে নেমেছে বাংলাদেশ। পাঁচ বোলার হলে কাজটা সহজ হয়।  

শিষ্য তাইজুল-নাঈমের বোলিংয়েও খুশি হেরাথ, ‘নাঈম সম্ভবত আট মাস পরে আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেললো। ওর জন্য কঠিন ছিল। তবে ওই আমাদের শুরুতে ব্রেক থ্রু দিয়েছে। ম্যাচ না খেললেও অনুশীলনে খুব ধারাবাহিক ছিল সে। আত্মবিশ্বাসী থাকায় ভালো করেছে। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে (দ্বিতীয় টেস্টে) তাইজুল সম্ভবত আমাদের সেরা বোলার ছিল। সেজন্যই ওকে দলে নেওয়া।’ 

টস জিতে ব্যাটিং করা শ্রীলঙ্কা প্রথম দিন ৪ উইকেট হারিয়ে তুলেছে ২৫৮ রান। অ্যাঞ্জেল ম্যাথুস ১১৪ রান করে অপরাজিত আছেন। তাদের লক্ষ্য প্রথম ইনিংসে অন্তত ৫০০ রান করা। তবে হেরাথ জানালেন, দ্বিতীয় দিন সকালেই দুই উইকেট তুলে নেওয়ার চেষ্টা থাকবে দলের। চেষ্টা থাকবে লঙ্কানদের ৪০০ রানের মধ্যে আটকে দেওয়ার।