দেশের সেরা টেস্ট ব্যাটার দুই বছর পর সেঞ্চুরি পেয়েছেন। অষ্টম সেঞ্চুরি উদযাপনের আগে দেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে পাঁচ হাজার রান করার কীর্তি গড়েছেন। এমন দিনেও কি অবসর নিয়ে প্রশ্ন করা মানায়! এমন দিনেও কি অবসর নিয়ে প্রশ্ন করা যায়! 

চতুর্থ দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে আসা মুশফিকুর রহিমের কাছে তারপরও প্রশ্নটা করা হলো। কারণ দুটো। একটি তার টি-২০ ফরম্যাট থেকে বোর্ডের বাদ দেওয়ার ইঞ্চিত। অন্যটি মুশির উদযাপনের ছবি দিয়ে স্ত্রীর ইনস্টাগ্রাম স্ট্যাটাস। মুশির স্ত্রী জান্নাতুল মন্ডি লিখেছেন, ‘আমরা হাসি মুখেই বিদায় নেব। আপনাদের (বিসিবি) রিপ্লেসমেন্ট (বিকল্প) আছে তো?’ 

বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে মুশি বলেন, ‘কী লিখেছে আমি তো দেখিনি। আমার এখন অবসরের কোন ভাবনা নেই। বোর্ড যেভাবে চাইবে আমি সেভাবে খেলে যাওয়া চেষ্টা করে যাবো। বাংলাদেশে অভিজ্ঞতার কোন দাম নেই। ১৭ বছর আসতে পেরেছি। তাতেই আমি খুশি। সামনে আল্লাহ যতটুকু রেখেছেন তাতেই খুশি।’ 

মুশফিক ভক্তদের আরেকটু ভালোভাবে সমর্থন দেওয়ারও অনুরোধ করেন। তিনি মনে করেন, অতি প্রশংসায় কিংবা অতি সমালোচনা বাংলাদেশের ক্রিকেট সংস্কৃতির অংশ, ‘আমাদের এখানে একটা সেঞ্চুরি কারলে তাকে ডন ব্রাডম্যানের চেয়ে ভালো ক্রিকেটার বানিয়ে দেওয়া হয়। তিন-চার ম্যাচ রান না করলেই মনে করা হয় সব শেষ। আমাদের একটা ক্রিকেট কালচারের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। ভক্তরা আরেকটু ভালোভাবে সমর্থন করলে বরং আমাদের জন্য ভালো।’