ফুটবল থেকে আপাতত দূরে রয়েছেন ফ্রান্স কিংবদন্তি জিনেদিন জিদান। লম্বা সময়ের ছুটি কাটাচ্ছেন সাবেক এই ফরাসি ফুটবলার ও কোচ। ছুটিটা আরও একটু মধুর হয়ে গেল নতুন অতিথির আগমনে। প্রথমবারের মতো দাদা হয়েছেন জিদান। জিদানের বড় ছেলে এনজো জিদানের বাগদত্তা একটি ফুটফুটে কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছেন।

রিয়াল মাদ্রিদের কোচ হিসেবে জিদানের সাফল্য আকাশ ছোঁয়া। দুই দফায় রিয়াল কোচ হিসেবে জিতেছেন একাধিক শিরোপা। তবে রিয়াল ছাড়ার পর ফুটবল থেকে আপাতত দূরে আছেন তিনি। রিয়াল ছাড়ার সময়ে শোনা গিয়েছিল, ফ্রান্সের পরবর্তী কোচ হবেন জিদান। এখন শোনা যাচ্ছে ফরাসি ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেইর (পিএসজি) কোচ হতে পারেন তিনি। তবে যাকে নিয়ে এত গুঞ্জন তিনিই মুখে কুলুপ এঁটেছেন। সংবাদকর্মীদের থেকে দূরে থাকছেন, কোনো সাক্ষাৎকারও দিচ্ছেন না।

জিদানের দাদা হওয়ার খবরটা দিয়েছেন তার বড় ছেলে এনজো। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইন্সটাগ্রামে এনজো তার একাউন্টে সদ্য জন্মানো মেয়ের ছবি পোস্ট করে সুখবরটা দিয়েছেন।

১৯ মে জন্ম নেয়া মেয়ের ছবি দিয়ে দুজন ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, 'আমাদের সিয়াকে স্বাগত, আমাদের রাজকন্যা।' এই পোস্টে গিয়ে ভালোবাসা জানিয়েছেন রিয়ালের তারকা মার্সেলো, ইসকো ও লুকা মদরিচরা।

জিদানের চার সন্তানই ছেলে। চারজনই বাবার মত ফুটবলকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। বড় ছেলে এনজো বেড়ে উঠেছেন রিয়ালের যুব একাডেমিতে। দারুণ প্রতিশ্রুতিশীল মনে হলেও প্রত্যাশিত পারফর্ম করতে না পারায় ক্যারিয়ারও সমান গতিতে আগায়নি। এখন ফ্রান্সের দ্বিতীয় স্তরের ক্লাব রোদে অ্যাভেরোন ক্লাবে খেলেন ২৭ বছর বয়সী এনজো।

জিদানের মেজো ছেলে খেলছেন স্প্যানিশ লিগে। বর্তমানে রায়ো ভায়েকানোতে গোলরক্ষক হিসেবে খেলছেন লুকা জিদান। এছাড়া জিদানের সেজো ও ছোট ছেলের নাম যথাক্রমে থিও ও এলিয়াজ। ২০ বছর বয়সী থিও খেলছেন রিয়াল মাদ্রিদের যুবদলে বাবার মতো মিডফিল্ডেই খেলেন এবং ১৬ বছর বয়সী এলিয়াজ খেলেন রিয়ালের অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলেন লেফটব্যাক হিসেবে।