কোচিং স্টাফের সবাই এমনভাবে মিরপুর পিচ দেখছিলেন যেন একেবারে গভীর পর্যন্ত পড়ে নেওয়া যায়। রাসেল ডমিঙ্গো, জেমি সিডন্সের কাছে মিরপুর পুরোনো ভেন্যু হলেও গতকাল আবার নতুন করে আবিস্কার করার চেষ্টা। যাতে করে একাদশ সাজাতে ভুল না হয় এবং খেলোয়াড়দের নিখুঁত পরিকল্পনা দেওয়া যায়। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পাঁচ দিন ভালো ক্রিকেট খেলে যেন জেতা যায় ম্যাচ। অধিনায়ক মুমিনুল হক ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে জানান, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মিরপুরে এবার রেকর্ড পরিবর্তন করতে চান তারা। বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথম কোনো সিরিজ জিতে যেতে চান ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে।

বাংলাদেশ বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম আসরে ছিল জয়হীন। ২০২১ সালে পাল্লেকেলে স্টেডিয়ামে প্রথম টেস্ট ড্র করায় কিছু পয়েন্ট যোগ করা গেছে এই যা। তবে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের দ্বিতীয় আসরের শুরুটা মন্দ হয়নি। পাকিস্তানের কাছে দেশের মাটিতে হোয়াইটওয়াশ হলেও নিউজিল্যান্ডের মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে পাওয়া গেছে ঐতিহাসিক জয়। সিরিজ ১-১ ব্যবধানে ড্র করায় ১২ পয়েন্ট অর্জন। যদিও দক্ষিণ আফ্রিকা সফর মোটেও ভালো যায়নি। বাজেভাবে হারের পাশাপাশি বিতর্কিত অনেক ঘটনার জন্ম দেয় বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্ট দিয়ে সেখান থেকে কিছুটা হলেও বেরোনো গেছে। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ম্যাচ ড্র করায় হূত আত্মবিশ্বাস অনেকটাই ফিরে এসেছে। সে অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে দেশের মাটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথমবারের মতো সিরিজ জিততে চান মুমিনুলরা। যদিও লঙ্কানদের বিপক্ষে ঘরের মাঠে এখনও টেস্ট ম্যাচ জিততে পারেননি বাংলাদেশ। ঢাকা টেস্ট জিততে পারলে নানা দিক থেকেই রেকর্ড গড়া হবে। মুমিনুলের বিশ্বাস, অলআউট খেলতে পারলে সিরিজ জিততে পারবেন তাঁরা, 'সবসময় একরকম থাকতে চাই না। আমার কাছে মনে হয় আমাদের জন্য ভালো একটা সুযোগ। চট্টগ্রাম টেস্টের কথা চিন্তা না করে এখন আমাদের এখন নতুন করে চিন্তা করতে হবে। ঢাকা টেস্টেও দলগতভাবে খেলতে পারলে ফলাফল আমাদের পক্ষে আসবে।'

মিরপুরে টেস্টে বাংলাদেশের রেকর্ড ভালোই বলা যায়। শেষ ১০ টেস্টের পাঁচটিতেই জিতেছে স্বাগতিকরা। মিনোস জিম্বাবুয়ে ছাড়াও ক্রিকেটের পরাশক্তি ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো দলকে হারানো গেছে। দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে বৃষ্টিবিঘ্নিত টেস্ট ম্যাচটি ড্র হয়েছিল ২০১৫ সালে। সেদিক থেকে হোম সিরিজে মিরপুরে সাফল্যের হার উজ্জীবিত হওয়ার মতোই। যদিও করোনা-উত্তর ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং পাকিস্তানের বিপক্ষে ভালো ক্রিকেট খেলতে পারেননি হোম অব ক্রিকেটে। তবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মিরপুরে বাংলাদেশের টেস্ট রেকর্ড ভালো নয়। ২০১৮ সালে চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র করেও ঢাকায় হেরেছে। লঙ্কানরা যেটাকে প্রেরণা হিসেবে দেখছে। চট্টগ্রাম টেস্ট শেষে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা বলেন, ঢাকা টেস্ট জিততে চান তারা। ২০১৮ সালের পুনরাবৃত্তি ঘটাবেন মিরপুরে। শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের ট্রিকি উইকেটে রণকৌশলও সাজাতে চান সেভাবে। স্পিননির্ভর বোলিং লাইনআপ নিয়ে খেলতে চান তারা। তিনজন স্পিনার রাখার পক্ষে মত দেন ধনাঞ্জয়া। যদিও কোচ ক্রিস সিলভারউড রণকৌশল গোপন রেখেছেন।

তার মতে, ভালো একটি টেস্ট ম্যাচ হতে যাচ্ছে মিরপুরে। যেখানে দুই দলই জয়ের জন্য খেলবে। দলের ব্যাটিং কোচ নাভিদ নেওয়াজের শরণাপন্ন হয়েছেন কন্ডিশন বুঝে নিতে। বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সাবেক এ কোচ শেরেবাংলার উইকেটের ভেতর বাহির বুঝিয়েও দিয়েছেন সিলভারউডকে। সেই মতো পরিকল্পনা করার ইচ্ছা লঙ্কান কোচের। যদিও তৃতীয় কারও কাছ থেকে তথ্য নিয়ে নিখুঁত পরিকল্পনা সাজানো সহজ ব্যাপার নয়। স্বাগতিকরা এদিক থেকে অনেক এগিয়ে। খেলোয়াড় এবং কোচিং স্টাফের প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা রয়েছে মিরপুরের পিস সম্পর্কে। মুমিনুল হোম অব ক্রিকেটে খেলার অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে বলছেন সতীর্থদের। ব্যাটিং, বোলিং এবং ফিল্ডিংয়ে সেরাটা উজার করে দিয়ে অলআউট পারফরম্যান্স চান সতীর্থদের কাছে। যাতে করে শেষটা ভালো করে সিরিজটা স্মরণীয় করে রাখা যায়।

ইনজুরির কারণে এই টেস্টে সেরা দু'জন বোলার পাচ্ছে না বাংলাদেশ। পেসার শরিফুল ইসলাম ও অফস্পিনার নাঈম হাসানের আঙুলে চিড় ধরায় ঢাকা টেস্ট থেকে ছিটকে গেছেন। তাদের জায়গায় নতুন করে কাউকে নেওয়া হয়নি। সেক্ষেত্রে দুই পেসারের সঙ্গে তিনজন স্পিনার খেলালে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে বেছে নেবে। শরিফুল না থাকায় খালেদ আহমেদের সঙ্গে এবাদত হোসেন ম্যাচে ফিরবেন। দুই বাঁহাতি স্পিনার সাকিব আল হাসান আর তাইজুল ইসলামের সঙ্গে মোসাদ্দেকের সুযোগ রয়েছে। যদিও মোসাদ্দেকের খেলার বিষয়টি রহস্য হিসেবেই রেখে দিলেন অধিনায়ক। তিনি বলেছেন, তিন স্পিনার নিলে মোসাদ্দেকের খেলার সম্ভাবনা বেশি। মোসাদ্দেক ছাড়া স্কোয়াডে বিকল্প স্পিনার নেইও। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের মহড়া হিসেবেও খেলানো হতে পারে এই স্পিন অলরাউন্ডারকে। স্বাগতিক অধিনায়ক তিনজন পেসার খেলানোর কথাও বলছেন। এই গরমে মিরপুরে সেটা বাস্তবসম্মত চিন্তা নয়। তাই অধিনায়কের তিন পেসার খেলানোর তত্ত্ব ঠাট্টা ধরে নেওয়াই ভালো। বাংলাদেশ স্পিনে প্রাধান্য দিলেও শ্রীলঙ্কা অলরাউন্ডার কাজে লাগাতে চায়। যাতে করে উইকেট থেকে সব ধরনের সুবিধা নিয়ে সিরিজ নির্ধারণী ঢাকা টেস্ট জিততে পারে।