রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেছেন, চীনের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে মনোযোগ দিচ্ছে মস্কো।

ল্যাভরভ এক অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে গত রাতে এ তথ্য জানানো হয়।খবর বিবিসির।

ল্যাভরভ অভিযোগ করে বলেন, ইউক্রেনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ শুরুর পর থেকে পশ্চিমা দেশগুলো ‘রুশফোবিয়া’ ছড়ানোর চেষ্টা চালিয়ে আসছে।

তবে মস্কোর সঙ্গে পশ্চিমাদের সম্পর্ক পুনঃস্থাপনের প্রস্তাব বিবেচনা করার কথা জানিয়েছেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, যদি পশ্চিমারা সম্পর্ক পুনঃস্থাপনের পরিবর্তে কিছু দিতে চায় তবে আমরা গুরুত্ব দিয়ে বিষয়টি বিবেচনা করব আমাদের জন্য তা জরুরি কিনা।

এ বিষয়ে ল্যাভরভ বলেন, যদি পশ্চিমা দেশগুলো তাদের মন পরিবর্তন করে এবং সহযোগিতার কিছু ধরন প্রস্তাব করে, তখন আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারব।

তিনি আরও বলেন, রাশিয়াকে পশ্চিম থেকে আসা ‘সরবরাহের ওপর যে কোনো উপায়ে নির্ভরশীল হওয়া বন্ধ করতে হবে’।

রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এখন মস্কোর লক্ষ্য হচ্ছে চীনের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়ন করা।

২৪ ফেব্রুয়ারি রাশিয়া ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরু করে। এর পর থেকেই দেশটিকে থামাতে পশ্চিমা দেশগুলো নানা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। এখন ইউরোপীয় ইউনিয়ন রুশ তেলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়টি বিবেচনা করছে।