২০ বছর কারাভোগের পর মুক্তি পেলেন জাপানের সশস্ত্র গোষ্ঠী রেড আর্মির সহ-প্রতিষ্ঠাতা। ১৯৭৪ সালে দূতাবাস ঘেরাওয়ের ঘটনায় তার সম্পৃক্ততা ছিল।

৭৬ বছর বয়সি ফুসাকো শিগেনবু ২০০০ সালে ওসাকায় গ্রেপ্তার হওয়ার আগে কয়েক দশক গ্রেপ্তার এড়িয়ে গেছেন। খবর বিবিসির।

তার একসময়ের সশস্ত্র গোষ্ঠীটি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবকে উসকে দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছিল।

গোষ্ঠীটি বেশ কিছু জিম্মি ও ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটানোর পাশপাশি ইসরায়েলের একটি বিমানবন্দরে হামলাও চালিয়েছিল।

কিন্তু শিগেনবুর নেতৃত্বাধীন সময়ে ১৯৭৪ সালে হেগে ফ্রান্সের দূতাবাসে হামলা এবং দেশটির রাষ্ট্রদূত ও কর্মকর্তাদের ১০০ ঘণ্টার জন্য রেড আর্মির তিন সদস্য জিম্মি করে। পরে রেড আর্মির এক সদস্যের মুক্তি ও ওই তিন সদস্য সিরিয়ায় যাওয়ার পর জিম্মি দশার ইতি ঘটে।

শিগেনবু মধ্যপ্রাচ্যে প্রায় ৩০ বছরের মতো বাস করেছেন। ছবি: এএফপি

শিগেনবু যদিও এ হামলায় অংশ নেননি। তবে জাপানের একটি আদালত ২০০৬ সালে এ হামলায় তার সংশ্লিষ্টতা খুঁজে পান এবং তাকে ২০ বছরের কারাদণ্ড দেন।

বিচারের অপেক্ষায় থাকার পাঁচ বছর আগেই তিনি রেড আর্মি ভেঙে দিয়েছিলেন। তখন তিনি বলেছিলেন, আইনের মধ্যেই তিনি লড়াই করে যেতে চান।

গোষ্ঠীটি সর্বশেষ ১৯৮৮ সালে ইতালিতে যুক্তরাষ্ট্রের মিলিটারি ক্লাবে গাড়ি বোমা হামলা চালিয়েছিল বলে জানা যায়।

শনিবার জেল থেকে বের হওয়ার পর শিগেনবু ‘নিরপরাধ মানুষদের ক্ষতি’ করার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেন।

তিনি বলেন, এটি প্রায় অর্ধ শতাব্দী আগে… কিন্তু আমরা আমাদের যুদ্ধকে প্রাধান্য দিয়ে নিরপরাধ লোকদের ক্ষতি করেছি, যারা আমাদের কাছে অপরিচিত ছিল।

তিনি এর আগে ১৯৭২ সালে তেল আবিবের লড এয়ারপোর্টে হামলায় ২৬ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করেছিলেন।