আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তিন ফরম্যাটের খেলোয়াড়দের দম ফেলার ফুসরত নেই। টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-২০ মিলিয়ে একটার পর একটা সিরিজ লেগে আছে। এতে করে ক্রিকেটাররা ইনজুরিতে পড়ছেন, শরীরের সঙ্গে মানসিক স্বাস্থ্যও খারাপ হচ্ছে। 

ওই চাপ সামাল দিতে বড় ক্রিকেট দলগুলো রোটেশন বা মাঝে মধ্যে ফরম্যাট ধরে ক্রিকেটারদের বিশ্রামের পদ্ধতি চালু করেছে। বিসিবিও দীর্ঘদিন ধরে তিন ফরম্যাটের ক্রিকেটার বিশেষ করে পেসারদের বিশ্রাম দিয়ে খেলানোর কথা ভাবছে। 

নানান কারণে সেটা হয়ে না উঠলেও ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে কার্যকর হতে পারে ওই রোটেশন পদ্ধতি। সব ঠিকঠাক থাকলে সেন্ট লুসিয়া টেস্টে একাদশে ফিরবেন পেসার শরিফুল ইসলাম। বিশ্রাম পাবেন মুস্তাফিজুর রহমান। বিসিবির কর্মকর্তারা বলছেন, এটার মধ্যে দিয়েই বিসিবির রোটেশন পদ্ধতি শুরু। 

ওয়েস্ট ইন্ডিজের টেস্ট একাদশে ছয় ব্যাটার ডানহাতি। দলে শরিফুলের মতো একজন বাঁহাতি পেসার দরকার বলে মনে করেন বিসিবির পরিচালক ও বাংলাদেশ দলের টিম লিডার খালেদ মাহমুদ সুজন। জানান যে, শরিফুল খেলবে এটা এখনও নিশ্চিত নয়। তবে ভালো সম্ভাবনা আছে। 

রোটেশন নিয়ে তিনি বলেন, ‘মুস্তাফিজের জায়গায় যদি শরিফুলকে খেলানো হয় ধরে নিতে পারে এটাই রোটেশন। এর মধ্যে দিয়ে দলে তিন ফরম্যাটের রোটেশন শুরু হলো। শুধু মুস্তাফিজ নয় আমরা এটা তিন ফরম্যাটেই চালু করতে চাই। কারণ একজন ক্রিকেটারের পক্ষে সারা বছর তিন ফরম্যাট খেলা কঠিন।’ 

সুজন জানান, রোটেশনে যাওয়া ছাড়া বোর্ডের বিকল্প নেই। কারণ পেসাররা এতো চাপ নিতে পারবেন না। তাদের ইনজুরি নিয়ে বোর্ডের অবশ্যই ভাবতে হচ্ছে। 

বিসিবি রোটেশন চালু করার জন্য ক্রিকেটারদের থেকে পছন্দের ফরম্যাট চেয়ে নিয়েছে। এর আগেই করোনাকালে বায়ো-বাবলের জীবন কঠিন হওয়ায় তামিম ইকবাল টি-২০ থেকে বিশ্রাম নিতে শুরু করেন। মুস্তাফিজ টেস্ট খেলতে অনীহা প্রকাশ করেন। রোটেশনের অংশ হিসেবেই সামনে থাকা জিম্বাবুয়ে সফরে সিনিয়রদের বিশ্রাম দিতে পারে বোর্ড।