কয়েকদিন আগেই শেষ হয়েছে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। সাদা পোশাকে বিধ্বস্ত হওয়ার পর এবার রঙিন পোশাকে জেগে ওঠার পালা। তবে তার আগেই প্রমত্তা আটলান্টিকে ভয়ঙ্কর এক অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হল টাইগাররা।

তবে স্বস্তির খবর, ভয়াবহ সমুদ্রযাত্রা শেষে সেন্ট লুসিয়া থেকে ডমিনিকায় পৌঁছেছে দল। বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজাম উদ্দীন চৌধুরী গণমাধ্যমকে জানান, দলের ফিজিওর সঙ্গে কথা বলেছি, যে তিন-চারজন অসুস্থ হয়েছে, তাদের অনেকেই এরই মধ্যে সুস্থ হয়ে গেছে। শুনলাম একটু বিশ্রাম নিলেই ঠিক হয়ে যাবে।'

মূলত আবহাওয়া খারাপ থাকার কারণেই এই পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে জানিয়ে নিজাম উদ্দীন বলেন, 'আবহাওয়া খারাপ থাকার কারণে এটা হয়েছে। নির্ধারিত সূচি থাকার কারণে এটা আর ছাড়তে দেরি করেনি। আর ছাড়ার পর যখন এমন আবহাওয়ার মধ্যে পড়েছে, তখন আর কিছু করার ছিল না। আমাদের অনেক খেলোয়াড় এ ধরনের ভ্রমণে অভ্যস্ত নয়। ওদের খেলোয়াড়েরা অভ্যস্ত বলে তাদের তেমন সমস্যা হয়নি।'

টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে বৃহস্পতিবার ভোরে সেন্ট লুসিয়া থেকে ডমিনিকায় পাড়ি দেয় টিম বাংলাদেশ। বিশালাকার ঢেউ দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন ক্রিকেটাররা। পেসার শরিফুল ইসলাম ও নুরুল হাসান সোহানও অসুস্থ হয়ে পড়েন। তারা বমিও করেন এসময়। এ ছাড়া অস্বস্তিতে থাকেন টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, খোদ ম্যানেজার নাফিস ইকবাল। ম্যাসেজম্যান সোহেল আতঙ্কে ডেকেই ঘুমিয়ে পড়েন।

মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে এ সময় কথা বলতে দেখা যায়। তিনি বলছিলেন, আমরা হয়তো ৪-৫ জন আছি যারা দাঁড়িয়ে আছি, আর কেউ দাঁড়িয়ে থাকার অবস্থায় নেই।

সেন্ট লুসিয়া থেকে বিমানেও যাত্রা করা যায়। তবে সেটি আয়োজন করে স্বাগতিক বোর্ড। উইন্ডিজ বোর্ড ফেরির আয়োজন করেছে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড সম্মতি দিয়েছে তাতে। দলের  সবারই এই ফেরি যাত্রা প্রথম! শেষ পর্যন্ত অসুস্থ হয়ে পড়েন ক্রিকেটাররা। বিসিবির এই সম্মতি এখন প্রশ্নবিদ্ধ।