'শুরুটা ভালোই হয়েছিল আমাদের। এরপর আমরা আর ভালো ক্রিকেট খেলিনি। তবে ক্রিকেটাররা একটা লম্বা ফেরি ভ্রমণ করে এসেছে, অনুশীলনও করতে পারেনি। তার উপর বেশ গরমও ছিল। যদিও এসবকে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করাতে চাই না। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটেছে। আমাদের সঙ্গে তারাও একই ফেরিতে ছিল। আমার বিশ্বাস, পরের ম্যাচে ছেলেরা ভালো করবে।'- টাইগারদের বাজে ব্যাটিংয়ে এভাবেই হতাশা প্রকাশ করেছেন কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

ম্যাচ পরিত্যক্ত হলেও এখান থেকে ক্রিকেটাররা পরের ম্যাচের জন্য নিজেদের ঝালিয়ে নেবে বলে প্রত্যাশা ডমিঙ্গোর। তবে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে সাকিবের উইকেট খোয়ানোটা চোখে লেগেছে টাইগার বসের। এনামুল হক বিজয়কেও তাগাদা দিলেন ইনিংস বড় করার। ডমিঙ্গো বলেন, 'বিজয়কে দলে ফিরে পাওয়াটা দুর্দান্ত। প্রচুর অভিজ্ঞতা রয়েছে ওর নামের পাশে। তবে তার রান করতে হবে। সাকিব ভুল সময়ে আউট হয়েছে। যখন জুটিটা বড় করার দরকার ছিল, তখনই ফিরেছেন। ভুল অপশন বাছাই করে সে আউট হয়েছে। হয়তো সে এখান থেকে শিখবেন। সে ভালো ফর্মে রয়েছে।'

বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে ২ রান করেই ফিরে যান ওপেনার মুনিম শাহরিয়ার। সাত বছর পর দলে ফিরে অন্য ওপেনার এনামুল করেন ১০ বলে ১৬ রান। লিটন দাস চারে নেমে ১৪ বলে ৯ রান করেন। অন্য প্রান্তে তিনে ব্যাট করতে নেমে সাকিব আল হাসান ভালো খেলছিলেন। কিন্তু তিনিও দ্রুত ফিরে যান। ব্যাট হাতে করেন ১৫ বলে দুই ছক্কা ও দুই চারে ২৯ রান। 

এছাড়া নুরুল হাসানের ব্যাট থেকে ১৬ বলে এক ছক্কা ও এক চারে ২৫ রান আসে। মাহমুদুল্লাহ (১৩বলে ৮), আফিফ (০) ও শেখ মাহেদি ব্যর্থ হওয়ায় বাংলাদেশ ১৩ ওভারে ৮ উইকেটে ১০৫ রান তোলে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ রোমারিও সেইফার্ট ২১ রানে নেন ৩ উইকেট। এছাড়া আকিল হোসাইন, অবেদ ম্যাকয় ও অডেন স্মিথ নেন একটি করে উইকেট। সিরিজের দ্বিতীয় টি-টুয়েন্টিতে বাংলাদেশ সময় আজ  রাত ১১.৩০ মিনিটে আবারও মুখোমুখি হবে দু’দল। যেখানে প্রথম ম্যাচের ব্যাটিং ব্যর্থতা ভুলে ঘুরে দাঁড়ানোয় প্রত্যয় বাংলাদেশের।