ছেলেদের বয়সভিত্তিক প্রতিযোগিতা মানেই অনূর্ধ্ব-১৮ ও ১৯ বয়সীদের। এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনের (এএফসি) টুর্নামেন্টের সঙ্গে মানিয়ে নিতে এবার সাফের আসরটি হচ্ছে অনূর্ধ্ব-২০। ২৫ জুলাই ভারতের ভুবনেশ্বরে শুরু হতে যাওয়া এ প্রতিযোগিতায় আপাতত ফাইনালে চোখ বাংলাদেশ দলের।

টুর্নামেন্ট খেলতে শুক্রবার ভারত যাওয়ার আগে (বৃহস্পতিবার) বাফুফে ভবনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লক্ষ্যের কথা জানান অধিনায়ক তানভির হোসেন, ‘আমরা ফাইনালের লক্ষ্য নিয়েই ভুবনেশ্বর যাচ্ছি।'

উদ্বোধনী দিনে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হবে লাল-সবুজের দলটি। পাঁচ দলের এই প্রতিযোগিতায় স্বাগতিক ভারত ও বাংলাদেশ ছাড়া অংশ নিচ্ছে শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ ও নেপাল। সিঙ্গেল লিগ ভিত্তিক খেলায় পয়েন্ট টেবিলে সেরা দুটি দল ৮ আগস্ট খেলবে ফাইনালে।

বয়সভিত্তিক এ সাফে খেলার কথা ছিল বসুন্ধরা কিংসের ইয়াসিন আরাফাত, রিমন হোসেনের এবং মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের আসিফ হোসেন ও শেখ মোরসালিনের। চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ নির্ধারিত হলেও দুটি ক্লাবই তাদের প্লেয়ারদের ছাড়েনি বলে দলের শক্তিটা কিছুটা কমেছে। কারণ, প্রিমিয়ার লিগে এ চারজন নজরকাড়া পারফরম্যান্স করেছেন।

তাঁরা না থাকলেও বাকিদের নিয়ে আশাবাদী বাফুফে টেকনিক্যাল ডিরেক্টর পল স্মলি, যিনি কিনা ভুবনেশ্বরে বাংলাদেশ দলের ডাগ আউটে থাকবেন। বাফুফে এলিট একাডেমির ১২, চ্যাম্পিয়ন্স ও প্রিমিয়ার লিগে খেলা ফুটবলারদের মধ্য থেকে বাছাই করে মোট ২৩ জনকে নিয়ে চূড়ান্ত স্কোয়াড সাজিয়েছেন স্মলি। প্রায় মাসখানেক তাঁর অধীনে কঠোর অনুশীলন করেছেন তানভিররা।

সাফ খেলতে যাওয়া তানভির, শান্ত কুমার রায়, শাহীন আহমেদ, রাজন হাওলাদার, আক্কাস আলী ও পিয়াস আহমেদ নোভার লিগ খেলার অভিজ্ঞতা আছে। এই দল নিয়েই ভালো কিছুর প্রত্যাশা স্মলির, 'দুর্ভাগ্যজনকভাবে লিগের খেলা চলায় এবং সামনে ফিফা উইন্ডো থাকায় বিপিএলের কিছু খেলোয়াড় আমরা পাইনি। বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগ (বিসিএল) থেকে কিছু মেধাবী খেলোয়াড় উঠে আসতে দেখেছি আমরা। আমি কল্পনা করতে পারছি, তারা আগামী মৌসুমে বিপিএলে খেলবে। লিগে খেলা ফুটবলারও রয়েছে এই দলে।'

২০১৫ সালে বয়সভিত্তিক এ প্রতিযোগিতা শুরু হলেও এখনও ট্রফি জিততে পারেনি বাংলাদেশ দল। ২০১৯ সালে কাঠমান্ডুতে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৮ প্রতিযোগিতায় হয়েছিল রানার্সআপ।

তিন বছর আগের সাফল্যকে এবার ছাপিয়ে যেতে চান অধিনায়ক তানভির, 'স্কোয়াডে যারা আছে, তাদের মধ্যে বেশির ভাগই এলিট একাডেমির। এ ছাড়া লিগ ও বিসিএলের খেলোয়াড়ও আছে। সবাইকে নিয়ে ভালো প্রস্তুতি নিয়েছি। কোচ ভালো দিকনির্দেশনা দিয়েছেন, প্রস্তুতিতে সবাই শতভাগ দিয়েছে। আশা করি, আমরা ভারতে গিয়ে ভালো একটা ফল করতে পারব। দল নিয়ে আমরা আশাবাদী।'