মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ টি-টোয়েন্টি অধিনায়কত্ব হারাচ্ছেন, সেটা অনুমেয়ই ছিল। দিনকয়েক আগেই সমকালের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছিল, নেতৃত্ব হারাচ্ছেন মাহমুদউল্লাহ। সেটাই হয়েছে, কিন্তু জিম্বাবুয়ে সফরে তাকে টি-টোয়েন্টি দলেও নেওয়া হয়নি। বিশ্রাম বলা হলেও আসলে তাকে বাদ দেওয়া হয়েছে। এই ফরম্যাটে উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান সোহানকে দেওয়া হয়েছে অধিনায়কত্ব।

ঘরোয়া লিগে অধিনায়ক হিসেবে বেশ ভালো নাম আছে কাজী নুরুল হাসান সোহানের। অধিনায়ক হিসেবে যে কয়বার দায়িত্ব পেয়েছিলেন নিজেকে প্রমাণ করেছেন দারুণভাবে। তবে জাতীয় দলে সুযোগ পাচ্ছিলেন না তিনি। বলা হয়ে থাকে, বাংলাদেশের সেরা উইকেটরক্ষক তিনি। তবে ব্যাটিং পারফরম্যান্সের কারণে দলে টানতে পারেননি নির্বাচকরা। প্রতিভাবান না হওয়াতে যার জন্য কঠোর পরিশ্রম করেছেন সোহান। নিজের ক্রিকেট গুরু মিজানুর রহমান বাবুলের সঙ্গে একান্তে কাজ করে উন্নতি করেছেন বেশ।

যার ছোঁয়া দেখা গেছে জাতীয় দলের জার্সিতেও। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সর্বশেষ ওয়ানডে সিরিজেও যা দেখা গেছে। দলে নিজের অবস্থান পাকা করতেই তার নেতৃত্বগুণ অধিনায়কত্ব পেতে সাহায্য করেছে সোহানকে। আসন্ন জিম্বাবুয়ে সফরে প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টিতে জাতীয় দলকে নেতৃত্ব দেবেন সোহান।

টি-টোয়েন্টি দলের নতুন অধিনায়ককে অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা, এমপি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তিনি লিখেন, 'যখন মেধাবীরা কঠোর পরিশ্রম করতে চায় না, তখন মেধার চেয়ে কঠোর পরিশ্রম ভালো। বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক হওয়ায় কাজী নুরুল হাসান সোহানকে অভিনন্দন। অনেক অনেক শুভকামনা রইলো।'

জিম্বাবুয়ের উদ্দেশে আগামী ২৬ জুলাই রাতে রওনা দেবে বাংলাদেশ দল। টি-টোয়েন্টি দিয়ে শুরু হবে বাংলাদেশের জিম্বাবুয়ে সফর। ম্যাচ তিনটি হারারে স্পোর্টস ক্লাবে ৩০, ৩১ জুলাই ও ২ আগস্ট অনুষ্ঠিত হবে। তিনটি ম্যাচই বাংলাদেশ সময় বিকাল ৫টায় শুরু হবে। এরপর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ।  

জিম্বাবুয়ে সফরে বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দল: মুনিম শাহরিয়ার, এনামুল হক বিজয়, লিটন কুমার দাস, আফিফ হোসেন ধ্রুব, নুরুল হাসান সোহান (অধিনায়ক), শেখ মেহেদি হাসান, নাসুম আহমেদ, তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান, হাসান মাহমুদ, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, নাজমুল হোসেন শান্ত, মেহেদী হাসান মিরাজ ও পারভেজ হোসেন ইমন।