অবশেষে গুঞ্জনই সত্যি হলো। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে বিশ্রাম দিয়ে টি২০ দলের অধিনায়ক করা হয়েছে নুরুল হাসান সোহানকে। এমনকি টি২০ দলে রাখা হয়নি মুশফিকুর রহিমকেও। আর জিম্বাবুয়ে সফর থেকে ছুটি নেওয়ায় সাকিব আল হাসানকেও পাচ্ছে না বাংলাদেশ। তবে জিম্বাবুয়ে সিরিজের ওয়ানডে দল মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহকে নিয়েই।

বাংলাদেশ দলের টি২০ অধিনায়ক হচ্ছেন মূলত সাকিব। দুই দিন আগে বিসিবির কর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে টি২০ নেতৃত্ব দিতে সাকিব রাজি হওয়ার পরই মাহমুদউল্লাহর বিদায় নিশ্চিত হয়ে যায়। গতকাল রাজধানীর একটি হোটেলে মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে বৈঠকে বসে এই বাদ দেওয়ার খবরটি তাঁকে জানিয়ে দেন বিসিবির দুই পরিচালক জালাল ইউনুস ও খালেদ মাহমুদ সুজন। তাদের সঙ্গে ছিলেন তিন নির্বাচকও। সাকিব ছুটিতে থাকায় এ সিরিজের জন্য সোহানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সাকিব ফিরলে সোহান তার ডেপুটির দায়িত্ব পালন করবেন।

অভিজ্ঞদের না রেখে তরুণদের নিয়ে জিম্বাবুয়ে সফরের টি-টোয়েন্টি দল সাজানোর কারণ ব্যাখ্যা করেছেন বিসিবির ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান জালাল ইউনুস। তিনি বলেন, 'সোহান ঘরোয়া ক্রিকেটে নেতৃত্বে দিয়েছে। ওর মধ্যে লিডারশিপ কোয়ালিটি দেখেছি। নেতৃত্বে দেয়াটা কোনো একজনের সিদ্ধান্ত না, এটা বোর্ডের। আমরা সবাই আলাপ আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, সোহানকে নেতৃত্ব দিয়েছি। আমরা মনে করছি যে তার নেতৃত্বগুণ আছে, অ্যাগ্রেসিভ, মোটিভেট করতে পারে, স্পিরিটেড এ ব্যাপারে আমরা নির্বাচকরাসহ সবাই একমত হয়েই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।'

জালাল ইউনুস আরও যোগ করেন, 'আপনারা জানেন যে টি-টোয়েন্টিতে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ অধিনায়ক ছিলেন। কয়েক দিন ধরে আলোচনা চলছিল অধিনায়কত্ব নিয়ে। সম্মানের সঙ্গে আমরা রিয়াদকে ডেকেছিলাম, টি-টোয়েন্টি দল নিয়ে আলাপ করেছি। তার সঙ্গে আলোচনা করে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে এবার আমরা একটা নতুন দল পাঠাতে চাচ্ছি জিম্বাবুয়েতে। এর মধ্যে কিছু সিনিয়র খেলোয়াড়ও থাকছে না। আসলে দেখার জন্য তাদের (তরুণদের) পাঠানো হচ্ছে।'

৩৩ টি-টোয়েন্টিতে সোহানের গড় ১২.৯০। সর্বোচ্চ ইনিংসটি ৩০ রানের। স্ট্রাইকরেট ১১১.৯৮।