যেন বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (ফুটবলের) ক্লাসিকো। যে ম্যাচে নিশ্চিত লড়াই, উত্তাপের আভাস থাকে। এবার ওই লড়াই গড়াল হাতাহাতিতে। বসুন্ধরা কিংস ৩-২ ব্যবধানে হারিয়েছে আবাহনী লিমিটেডকে। কিন্তু ওই জয় ছাপিয়ে আলোচনায় দুই দলের হাতাহাতি। 

এবারের প্রিমিয়ার লিগের চ্যাম্পিয়ন হয়ে গেছে বসুন্ধরা কিংস। সাইফ স্পোর্টিংকে হারিয়ে দলটি হ্যাটট্রিক শিরোপা নিশ্চিত করেছে। কিন্তু সেভাবে উৎসব করেনি দলটি। সোমবার ঘরের মাঠ কিংস অ্যারেনায় আবাহনী ম্যাচের জন্য জমিয়ে রেখেছিল উৎসব। 

ভরা গ্যালারির সামনে সেটা করতে পেরেছে বসুন্ধরা। তবে খানিকটা বিষাদও আছে। ম্যাচের উত্তাপ ছাড়িয়ে দুই দলের ফুটবলাররা যে জড়িয়ে পড়েন হাতাহাতিতে। সেটাও ম্যাচেও শুরুতে। 

১৫ মিনিটে বল নিয়ন্ত্রণ নিতে আবাহনীর মিলাদ শেখ সুলেমানিকে কনুইয়ের গুঁতোয় ফেলে দেন কিংসের মিগেল ফিগেইরা। এরপর আবাহনীর গোলকিপার শহীদুল আলম ছুটে আসেন। ধাক্কাধাক্কি লাগিয়ে দেন। মুহূর্তেই আরও কয়েকজন এসে হাতাহাতিতে জড়ান। 

ম্যাচ শুরু হতেই আবাহনীকে পিছিয়ে দেন নুহা মারং। ২০তম মিনিটে গোল করেন তিনি। মধ্যে আবাহনীর রাকিব সমতা আনলেও ৭১ মিনিটে রবসন কিংসকে লিডে রাখেন। যোগ করা সময়ে রবসন দলকে ৩-১ ব্যবধানে এগিয়ে নেন। শেষ বাঁশির আগে হারের ব্যবধান ছোট করে আবাহনী। গোল করেন রাফায়েল।

দুই ম্যাচ হাতে রেখে শিরোপা নিশ্চিত করেছে বসুন্ধরা কিংস। তবে এখনও শিরোপা হাতে পায়নি। শেষ ম্যাচ শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের বিপক্ষে খেলার পরই নিয়ম অনুযায়ী শিরোপা দেবে বাফুফে। ওই ম্যাচ আবার মুন্সিগঞ্জে। তবে শেখ জামাল ম্যাচটি কিংস অ্যারেনায় খেলতে আগ্রহী। ম্যাচটি ঘরের মাঠে হলে কিংসের উৎসব বাড়তি মাত্রা পাবে।