ম্যানচেস্টার সিটির ডিফেন্ডার বেঞ্জামিন মেন্ডির বিরুদ্ধে আটটি ধর্ষণ ও একটি যৌন নিপীড়নের অভিযোগ মামলার শুনানি চলছে। ইংল্যান্ডের চেস্টার ক্রাউন কোর্টে শুনানিতে আদালতকে বলা হয়েছে, মেন্ডি এক রাতে তিন নারীকে ধর্ষণ করেছে। তাদের বদ্ধ রুমে রেখে যৌন নির্যাতন করা হয়েছে। 

মেন্ডিকে ‘যৌন রাক্ষস’ উল্লেখ করে আদালতে বলা হয়েছে, নারীদের ‘খেলার বস্তু’ হিসেবে দেখতেন মেন্ডি। ম্যানসিটির এই ২৮ বছর বয়সী ফ্রান্স ডিফেন্ডার অবশ্য নিজের ওপর আনিত সব অভিযোগে সত্য নয় বলে দাবি করেছেন। শুনানি চলবে আরও তিন মাস। 

আদালতে বাদী পক্ষের আইনজীবী টিমোথি ক্যারি কিউসি বলেছেন, ২০১৮ থেকে ২০২১ সালের মধ্যে মেন্ডি তার বদ্ধ রুমে সাতজনকে ধর্ষণ করেছেন। একজনকে যৌন নিপীড়ন করেছেন। এর মধ্যে তিনজনকে পুল পার্টিতে একই রাতে ধর্ষণ করেছেন তিনি। 

এছাড়া ‘পেনিক রুম’ ছিল মেন্ডিস। বিশেষায়িত তালাদ্বারা রুম বন্ধ হয়ে এক আতঙ্কের সৃষ্টি করা হতো। সেখানে নারীদের ওপর যৌন নির্যাতন করতেন ফ্রান্সের বিশ্বকাপ জয়ী এই ফুটবলার। ওই দরজা ভেতর থেকে ছাড়া খোলার উপায় ছিল না। 

বিষয়টি নিয়ে আইনজীবী কার্টি বলেছেন, ‘এটা পুরনো এক অধ্যায়েরই অনুচ্ছেদ, যেখানে পুরুষরা ভাবে তারা শক্তিশালী, সেজন্য তারা নারীদের উপর নির্যাত করে, ক্ষমতা দেখায়। এই নারীদের ক্ষেত্রেও ভাবা হয়েছে ব্যবহারের পর ছুড়ে ফেলে দেবে এবং তার কিছুই হবে না।'