ডানহাতি পেসার হাসান মাহমুদের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার আড়াই বছরের। ২০২০ সালের মার্চে অভিষেক হলেও মাত্র আটটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন তিনি। কখনও বেঞ্চে কাটাতে হয়েছে ঠিক কিন্তু ফর্মহীনতার জন্য বাদ যাননি।

ছোট্ট ক্যারিয়ারে এই গতিময় পেসারের ইনজুরির কারণেই মাঠের বাইরে থাকতে হয়েছে। জাতীয় দলে আসার আগেও ক্যারিয়ার হুমকিতে পড়া ইনজুরিতে পড়েছিলেন তিনি। সব কাটিয়ে তিনি ফিরেছেন। এবার যেমন ফিরলেন অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত টি-২০ বিশ্বকাপের দলে।

ইনজুরি কাটিয়ে সোমবার থেকে বোলিং অনুশীলন শুরুর অপেক্ষায় থাকা হাসান মাহমুদ শনিবার সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘পেস বোলারদের ইনজুরি বন্ধুর মতো। আসে আবার চলে যায়। কাজ করার ওপর থাকতে হবে। বিশ্বকাপ দলে আছি, নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করবো।’

জিম্বাবুয়ে সফরে টি-২০ খেলতে নেমে নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে মুগ্ধ করেছিলেন হাসান। কিন্তু ইনজুরির কারণে এশিয়া কাপে ছিলেন না। হাসান জানান, জিম্বাবুয়ে সফরে ভালো করায় তিনি বিশ্বকাপ দলে জায়গা পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী ছিলেন।

হাসানের চ্যালেঞ্জ এখন বিশ্বকাপের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত হওয়া। নতুন বলে কিংবা স্লগে ভালো বোলিং করা। বেসিকের ওপর আত্মবিশ্বাসী হওয়া, ‘চাপে আমরা ভীত হয়ে পড়ি। বেসিক ভুলে যাই। ওইটা কাটিয়ে উঠতে হবে। চাপহীন থেকে বোলিং করলে যেটা বলবো ওটাই ইয়র্কার করতে পারবো।’