সাবিনা খাতুন। সাতক্ষীরায় জন্মগ্রহণ করা ২৮ বছর বয়সী এই ফরওয়ার্ড বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক। তার অধীনেই বাংলাদেশ নারীদের ফুটবলের সবচেয়ে বড় সাফল্য সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জিতেছে। আর দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে সাবিনা জিতে নিয়েছেন টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় এবং সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার। পুরো টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ ৫ ম্যাচে প্রতিপক্ষের জালে গোল দিয়েছে ২৩টি। এর মধ্যে সাবিনা একাই করেছেন ৮ গোল।

সাবিনা খাতুনের বাড়ি সাতক্ষীরায় বইছে আনন্দের ফল্গুধারা। শহরের সবুজবাগ এলাকায় সাবিনাদের বাস। পরিবারে পাঁচ বোনের মধ্যে সাবিনা চতুর্থ। বাবা সৈয়দ আলী গাজী ছিলেন ব্যবসায়ী, এখন আর বেঁচে নেই। 

সাবিনার মা মমতাজ বেগম বলেন, 'আমার মেয়েরা চ্যাম্পিয়ন হয়েছে শুনে কী যে আনন্দ লাগছে তা ভাষায় প্রকাশ করার মতো না। আমার মেয়ের ধ্যান-জ্ঞান ফুটবল ঘিরে। টুর্নামেন্টে সেরা খেলোয়াড় ও আট গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ায় আমাদের আনন্দের শেষ নেই। ওর বাবা যদি আজ বেঁচে থাকতেন তাহলে কী যে খুশি হতেন।' 

তিনি আরও বলেন, 'জেতার পর সাবিনা নেপাল থেকে কয়েকবার আমাকে ফোন করেছে। জানতে চেয়েছে, আমরা তার ফাইনাল খেলা দেখেছি কিনা।'

সাবিনার এমন সাফল্য আসলে নতুন কিছু নয়। ২০০৯ সালে সাতক্ষীরা জেলা দলের হয়ে নিজের পেশাদার ফুটবল ক্যারিয়ার শুরু করা সাবিনা যেখানেই খেলেছেন সেখানেই গোলবন্যায় ভাসিয়েছেন প্রতিপক্ষকে। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের হয়ে পেশাদার ফুটবলে পুরুষ ও নারী উভয় দলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি গোল করেছেন তিনি। বাংলাদেশ পুরুষ ও নারী জাতীয় ফুটবল দলের মধ্যেও সবচেয়ে বেশি গোল তার। ৫১ ম্যাচে করেছেন ৩২ গোল।